তুফানগঞ্জ ২নং পঞ্চায়েত সমিতির ৯ সদস্যের তৃনমূলে যোগ, অস্বস্তিতে বিজেপি

525

কোচবিহার, ৪ ফেব্রুয়ারিঃ তুফানগঞ্জ ২নং পঞ্চায়েত সমিতির দল ছুট ৯ জন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য ফের তৃন্মুলে যোগদান করেন বলে দাবি তৃনমূল নেতৃত্বের। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কোচবিহারে রাজ্যের উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের হাত ধরে ফের দলে ফিরে আসে। এদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন মন্ত্রী।

রবিবাবু জানান,কিছুটা দেরি হলেও সম্বিত ফিরেছে তাদের। তারা মমতা বন্ধোপাধ্যায়ের উন্নয়নের পাশে থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করায় এইদিন ৯জন পঞ্চায়ের সমিতির সদস্যকে দলে ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আমরা আশা রাখছি গত কয়েকমাস ধরে স্তব্ধ হয়ে যাওয়া উন্নয়নকে ফের গতিশীল করে তুলতে সক্ষম হবে এরা।

২৯ আসন বিশিষ্ট এই পঞ্চায়েত সমিতির তৃনমূলের দখলে ছিল ২০টি। লোকসভার পর ৯ জন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য বিজেপিতে যোগদান করা সংখ্যালঘু হয়ে পড়ে তৃনমূল। ফের তারা দলে ফিরে আসায় পঞ্চায়েত সমিতিতে দলের শক্তি বৃদ্ধি হয়। এবং ওই পঞ্চায়েত সমিতির রাজনৈতিক ক্ষমতাও ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তৃনমূলের।

লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গ জুড়ে ভরাডুবি হয় তৃনমূলের। কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ার কেন্দ্রে দলের খারাপ ফলাফল হওয়ায় গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রতিনিধিদের একটা বড় অংশ তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করে। তবে সময়ের সাথে সাথে তারা আবার দলে ফিরে আস্তে শুরু করে। এদিন পঞ্চায়েত সমিতির ৯ জন সদস্য দলে ফিরে আসায় তুফানগঞ্জের বক্সিরহাট এলাকায় দলের শক্তিবৃদ্ধি হল বলে রাজনৈতিক মহলের ধারনা। 

এদিন এবিষয়ে কোচবিহার জেলা বিজেপি সভানেত্রী মালতি রাভা বলেন,আমরা কাউকে জোড় করে আনিনি। তারা স্ব-ইচ্ছায় এসেছে,স্ব-ইচ্ছায় চলে গেছে। আমাদের দলে এদের কার্যকারিতাও ছিল না। আসলে তৃনমূলে কর্মী ও জন প্রতিনিধি টাকা পয়সা নয়-ছয় করেছে। তারপর তারা তৃনমুল ছেড়ে বিজেপিতে আসে। তারা আমাদের দলে এসে দেখল এখানে কোন লাভ হচ্ছে না বা টাকা নয়-ছয় করতে পারছে না তাই তারা আবার তৃনমুল ফিরে গেছে।