মালদার চাঁচলে দুর্ঘটনার হাত থেকে তিন তিনটি তাজা প্রাণ বাঁচালেন এক সিভিক ভলেন্টিয়ার

62

বিশ্বজিৎ মণ্ডল, মালদাঃ দুর্ঘটনার হাত থেকে তিন তিনটি তাজা প্রাণ বাঁচালেন এক সিভিক ভলেন্টিয়ার। এদিন মালদার চাঁচল থানার কর্মরত কৃষ্ণ মন্ডল নামে এক সিভিক ভলেন্টিয়ার রসিকপুর এলাকার ৮১ নং জাতীয় সড়কে দুটি লরির মুখোমুখি আহত হয় ৩ ব্যক্তি। নিজের হাতেই গাড়িতে চাপা পরা অবস্থায় ওই ৩ ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে প্রাণ বাঁচিয়ে দেন বলে জানা গেছে। যার মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে স্থানান্তরিত করা হয়েছে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে ঘাতক গাড়িটিকে আটক করেছে গাজোল থানার পুলিশ।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে খবর, গুরুতর জখম ওই তিন ব্যক্তি নকুল মন্ডল (৩২) বাড়ি গাজোল থানার আগমপুর এলাকায়, বিজয় কৃষ্ণ বিশ্বাস (৩২) বাড়ি গরুহাট এলাকায় এবং রবীন্দ্রনাথ সরকার (৩৮) বাড়ি কদুবাড়ি  এলাকায়।

স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, এদিন বিকেলে রশিকপুর এলাকায় ৮১ নং জাতীয় সড়কে একটি চার চাকার মালবাহী গাড়ির চালক মদ্যপ অবস্থায় সামসি থেকে গাজোল এর দিকে যাচ্ছিল। প্রচন্ড গতিতে এসে রশিকপুর এলাকায় কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ সিগন্যাল দিলেও সিগন্যাল না মেনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ধাক্কা মারে ভুল রুটে দাঁড়িয়ে থাকা একটি কন্টেইনার গাড়িকে। ঘটনায় দুমড়ে-মুচড়ে যায় ছোট লরিটি। গাড়ির ভেতরে আটকে পড়ে ড্রাইভারসহ তিনজন ব্যক্তি। ঘটনাটি দেখতে পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে এলো সাহস করে হাত লাগান নি কেউ। অবশেষে মালদা থেকে চাঁচল এর দিকে বাইকে করে যাচ্ছিলেন চাঁচল থানার সিভিক ভলেন্টিয়ার কৃষ্ণ মন্ডল। চাচঁল যাওয়ার পথে এ ঘটনাটি দেখতে পেয়ে তড়িঘড়ি বাইক থামিয়ে তিন ব্যক্তিকে উদ্ধার কাজে হাত লাগাই ভলেন্টিয়ার। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান গাজোল হাইওয়ে ট্রাফিক ইনচার্জ মনসুর আলী এবং গাজোল থানার অফিসার শুভেন্দু বিকাশ পতি। অবশেষে ওই সিভিক ভলেন্টিয়ার এর কর্মকান্ড, স্থানীয় বাসিন্দাদের সহযোগিতায় এবং পুলিশের হস্তক্ষেপে গাড়িটি থেকে আহতদের উদ্ধার করে তাদের পাঠানো হয় গাজোল গ্রামীণ হাসপাতাল। সেখানে তিন জনের প্রাথমিক চিকিৎসার পর একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে পাঠানো হয় মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

স্থানীয় বাসিন্দা দিলীপ সান্যাল জানান, মদ্যপ অবস্থায় গাড়ির চালক প্রচন্ড গতিতে এসে কর্তব্যরত ট্রাফিক সিগন্যাল দিলেও তা না মেনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একটি কন্টেইনার গাড়িকে প্রচন্ড গতিতে ধাক্কা মারে। পুলিশ এসে উদ্ধার করে তাদের গ্রামীণ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক রয়েছে। আমরা প্রশাসনের কাছে দাবি জানাচ্ছি যাতে রশিকপুর এলাকায় ট্রাফিক ব্যবস্থা আরও সক্রিয় করা যায়।

ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে গাজোল গ্রামীণ হাসপাতালে পাঠিয়ে ঘাতক দুটি গাড়িকে আটক করেছে পুলিশ। পুরো ঘটনা নিয়ে শুরু হয়েছে তদন্ত।