কাজ করে বাড়ি ফেরার পথে দু-দুবার গণধর্ষণের শিকার হল এক মহিলা

1226

তুষার কান্তি বিশ্বাস, উত্তর দিনাজপুরঃ হোটেল থেকে দিনমজুরির কাজ সেরে বাড়ি ফেরার পথে একই  রাতে দু-দুবার গণধর্ষণের শিকার হল এক মহিলা। বর্ষবরনের রাতে নারকীয় এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ থানার হরিহরপুরে। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে এলাকায়। পুলিশ ঘটনার সাথে যুক্ত থাকার অভিযোগে দুই দুস্কৃতীকে গ্রেপ্তার করেছে। আজ তাদের রায়গঞ্জ আদালতে তোলা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কালিয়াগঞ্জের হরিহরপুরের বাসিন্দা ২৭ বছর বয়সী এক মহিলা ধনকৈল মোড়ে এক হোটেলে দিনমজুরির কাজ করেন। প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার রাতেও হোটেলের কাজ সেরে হরিহরপুরে বাড়িতে ফিরছিলেন তিনি। পথে  সুজন বর্মন ও শিবু বর্মন নামে দুই দুস্কৃতী  ওই মহিলাকে রাস্তা থেকে তুলে  ধনকৈল মিনি ব্যাঙ্কের পাশে নির্জন এলাকায় নিয়ে গিয়ে জোর করে মদ্যপান করিয়ে তার উপর পাশবিক অত্যাচার চালায় এবং ধর্ষন করে বলে অভিযোগ।

দুস্কৃতীরা কুকর্ম করে চলে যাওয়ার পর নির্যাতিতা মহিলা সেখান থেকে কোনও রকমে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হলে পথে  নকুল মহন্ত নামে এক গাড়ির চালক তাকে জোর করে গাড়িতে তুলে ধর্ষন করে বলে অভিযোগ নির্যাতিতার পরিবারের। এদিকে বাড়িতে না ফেরায় বাড়ির লোকজন ওই মহিলার খোঁজে বের হয়। ভোর ৩ টে নাগাদ ধনকৈল মোড়ে তাকে উদ্ধার করে। 

এরপর নির্যাতিতার কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে সাথে সাথে কালিয়াগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ জানায় পরিবারের লোকেরা। অভিযোগ পাওয়ার পরেই কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ তৎপরতার সাথে শিবু বর্মন ও নকুল মহন্তকে গ্রেপ্তার করে। এই নারকীয় ঘটনায় যুক্ত অপর দুস্কৃতী সুজন বর্মন পলাতক। পুলিশ সুজন বর্মনের খোঁজে তল্লাশি শুরু করার পাশাপাশি ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার ধৃত দুই দুস্কৃতী নকুল মহন্ত ও শিবু বর্মনকে রায়গঞ্জ আদালতে তোলা হয়েছে।  এই ঘটনায় উত্তর দিনাজপুর জেলাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। দোষীদের চরম শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছে নির্যাতিতা মহিলা সহ তার পরিবারের লোকেরা।