দিঘার সমুদ্র দেখানের টোপ দিয়ে হোটেলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার এক যুবক

789

ওয়েব ডেস্ক, ৪ ফেব্রুয়ারিঃ ধর্ষণের মত ঘটনা প্রায় প্রায় আমাদের শিরোনাম হয়ে উঠে। এই ধর্ষণের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন নারী সমাজ। প্রশ্ন উঠেছে প্রশাসনের বিরুদ্ধে। তবে প্রশ্ন একটাই আজ কি নারী সুরক্ষিত নয়? এমনি একটি ঘটনা উঠে এলো পটাশপুর থানার দ্বারিকাপুর গ্রাম থেকে। জানা গেছে এক গৃহবধূকে দিঘার সমুদ্র দেখানোর নাম করে মাদক মেশানো খাবার খাইয়ে হোটেলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ওই যুবককে গ্রেফতার করল পটাশপুর থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ধৃত ওই ব্যক্তির নাম সৈকত মাইতি। তার বাড়ি পটাশপুর থানার দ্বারিকাপুর গ্রামে। পুলিশ আরও জানিয়েছে, অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি এক বেসরকারি স্কুলের গাড়ি চালাতো। জানা গিয়েছে, গৃহবধূকে সে দিঘার সমুদ্র দেখানোর টোপ দেয়। এবং ওইগৃহবধূ তার কথায় আশ্বস্ত হয়ে গত ২১ জানুয়ারি তার সঙ্গে দীঘা বেড়াতে নিয়ে যায়। এরপর সেখানে গিয়ে তাঁরা দিঘার একটি হোটেলে ওঠে। এবং সেখানে তাঁকে মাদক মিশ্রিত খাবার খাইয়ে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নির্যাতিতা ওই গৃহবধূর ছেলে স্থানীয় এক বেসরকারি মাধ্যম স্কুলে পড়ত ৷ সেই স্কুলেরই গাড়ি চালায় অভিযুক্ত যুবক৷ গৃহবধূকে দিঘায় সমুদ্র দেখানোর জন্য নিয়ে গিয়ে সেখানকার এক হোটেলের ঘরে তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ৷

এ কথা কাউকে জানালে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দেয় সে৷  এদিকে গত ২ ফেব্রুয়ারি পটাশপুর থানায় ওই যুবকের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন ওই গৃহবধূ। নির্যাতিতার থেকে নির্দিষ্ট অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ। তারপর ধৃত অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পটাশপুর থানার পুলিশ। সোমবার অভিযুক্তকে কাঁথি মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক তার জামিন নাকচ করে দেন। সেইসঙ্গে নির্যাতিতার গোপন জবানবন্দীও নেওযা হয়েছে ৷

পটাশপুর থানার ওসি রাজকুমার দেবনাথ বলেন, অভিযোগের ভিওিতে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুরো ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।