তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ ও খুনের অভিযোগে ফাঁসির সাজা এক যুবকের

97

ওয়েব ডেস্ক, ৩১ জানুয়ারিঃ গুজরাতের ধর্ষণের কাণ্ডের অভিযুক্তকে ফাঁসির সাজা শুনালো আদালত। বৃহস্পতিবার সুরাতের আদালতে বিহারের ওই অভিযুক্ত যুবকের মৃত্যু পরোয়ানা জারি করে আদালত।

আদালত সূত্রে খবর, সুরাতের অতিরিক্ত দায়রা বিচারক পিএস কালা এদিন মৃত্যু পরোয়ানায় সই করেছেন। ২৯ ফেব্রুয়ারি অনিল যাদব নামে ওই যুবকের ফাঁসি কার্যকর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এক বাংলা সংবাদ মাধ্যমে সরকারি কৌঁসুলি নয়ন সুখাদওয়ালা জানান, বিচারক নাবালিকার ধর্ষক-খুনির মৃত্যু পরোয়ানায় আজ স্বাক্ষর করেন। পরোয়ানায় বলা হয়েছে, ২০২০-র ২৯ ফেব্রুয়ারি ভোর সাড়ে ৪টের সময় সবরমতী জেলে মৃত্যুর আগে পর্যন্ত ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখতে হবে দোষীকে। তিনি আরও জানান পকসো আইনেই অনিল যাদবকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ২০১৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর গুজরাত হাইকোর্ট পকসো আদালতের এই রায় বহাল রাখে।  হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছে না যাদব।

২০১৮ সালের ১৪ অক্টোবর সুরাত শহরের গোদাদরার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়ে যায় তিন বছরের শিশুকন্যা। একদিন পর বাড়িরই নীচের তলার একটি ঘর থেকে ওই শিশুকন্যার দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘরটি বাইরে থেকে তালাবন্ধ ছিল। ঘটনার পাঁচ দিন পর অনিল যাদবকে বিহারের বক্সার থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। কারণ, তালবন্ধ ঘরটিতে ওই যুবকই থাকত। ঘটনার পর সে পালিয়েছিল। পুলিশ জানায়, অনিল ছিল ওই পরিবারের পরিচিত। বাড়ি বিহারে হলেও গুজরাতে সে শ্রমিকের কাজ করত এসেছিল।