আবারো চুরি মাথাভাঙ্গা এলাকায়, আতংকিত সাধারণ মানুষ

95

কাজল রায়, মাথাভাঙ্গাঃ আবারো চুরির ঘটনা ঘটলো মাথাভাঙ্গা এলাকায়। একের পর এক চুরির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মাথাভাঙ্গা সহ বিভিন্ন এলাকায়। গত রবিবার মাথাভাঙা ২ নং ব্লকের নিশিগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার নোলঙ্গী বাড়ি এলাকায় চুরি হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার দুপুরে পরপর দুটি বাড়িতে চুরির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় নিশিগঞ্জ পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন নোলঙ্গি বাড়ি গ্রামে। জানা যায়, এদিন বাড়িতে কেউ ছিলেন না। ব্যক্তিগত কাজে গিয়েছিলেন বাড়ির লোকজন। পাকা বাড়ির দরজা ভেঙে নগদ টাকা সহ অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে পালিয়ে যায় চোরেরা। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে নিশিগঞ্জ এলাকায়।

যদিও এই দুটি চুরির ব্যাপারে গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত নিশিগঞ্জ ফাঁড়িতে কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। এখন কাজের সময়, ধান কাটা, রবি মৌসুমে জমিতে কাজ করা, বিভিন্ন কাজে বাইরে বেরিয়ে যাওয়া, ইত্যাদি ব্যক্তিগত কাজ মানুষের লেগেই থাকে। তাই বাড়িতে যখন কেউ না থাকে তখন দরজা বন্ধ করে একমাত্র ভরসা হচ্ছে একটি তালা। সেই তালা ভেঙে দুষ্কৃতকারীরা একের পর এক চুরির ঘটনা ঘটে যাচ্ছে।

গত ২৬ শে নভেম্বর মাথাভাঙা ১ নং ব্লকের পচাগর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাবুরটারি গ্রামের যোগেন বর্মনের বাড়িতে। ফাঁকা বাড়ির সুযোগে একই কায়দায় তালা ভেঙে ঘরের ভেতরে থাকা শোকেস, ট্রাংক ভেঙে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার সহ নথিপত্র নিয়ে পালিয়ে যায় চোরেরা। তার আগে গত ১৩ ই নভেম্বর মাথাভাঙা ১ নং ব্লকের পচাগড় গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার মধ্য বাইশগুড়ি গ্রামের প্রাক্তন সেনা কর্মীর বাড়িতে তালা ভেঙে ঘরের ভেতরে ঢুকে আলমারি শোকেস ইত্যাদি ভেঙে নগদ অর্থ সহ বেশ কয়েক লক্ষ টাকার স্বর্ণালঙ্কার চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা। যদিও পুলিশি তৎপরতায় ওই প্রাক্তন সেনা কর্মীর বাড়িতে খোয়া যাওয়া স্বর্ণালঙ্কার সহ চোরকে পাকড়াও করে মাথাভাঙ্গা থানার পুলিশ। অল্প দিনেই পুলিশ সেই চুরির কিনারা করতে পারায় পুলিশ সাধারণ মানুষের কাছে প্রশংসা কুড়িয়েছে। একদিকে পুলিশ চুরির কিনারা করে, অপরদিকে আবার চুরির ঘটনা বাড়তে থাকে। এ নিয়ে সংশয় রয়েছে মাথাভাঙা মহাকুমার স্থানীয় বাসিন্দারা। কেন এই ঘটনা দিনের পর দিন বাড়ছে এ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন সাধারণ মানুষ।

এ ব্যাপারে মাথাভাঙ্গা থানার মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সুরজিৎ মন্ডল জানান, একটি চুরির ঘটনায় যুক্ত চোরকে পাকড়াও করা হয়েছে কিছু স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়েছে। আরো যে সমস্ত চুরির ঘটনা ঘটছে পুলিশের পক্ষ থেকে তা তদন্ত করা শুরু করেছে।

একের পর এক চুরির ঘটনার প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি তথা মাথাভাঙার বাসিন্দা গিরীন্দ্রনাথ বর্মন বলেন, চুরি রুখতে পুলিশকে আরো সতর্ক হতে হবে, পাশাপাশি গ্রাম এবং শহরের মানুষকে চুরি রুখতে আরো নিজেদেরকেও সজাগ থাকতে হবে। এই নিদান দেন গিরিন বাবু।

মাথাভাঙার বাবুরটারির বাসিন্দা তথা বিজেপির কোচবিহার জেলার কনভেনার অভিজিৎ বর্মন একই সুরে বলেন, চুরি রুখতে পুলিশকে আরো সদর্থক ভূমিকা পালন করতে হবে।