বুধবার ভোর থেকে বন্ধ বিমান পরিষেবা, জোর প্রস্তুতি কলকাতা বিমানবন্দরে

78

ওয়েব ডেস্ক, ২৫ মেঃ অভিমুখ যে দিকেই হোক না কেন, কলকাতায় কিছুটা প্রভাব পড়বেই ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের। আর সেই আশঙ্কায় চলছে জোর প্রস্তুতি। গত বছর আমফানের পর জলমগ্ন এয়ারপোর্টের ছবি দেখা গিয়েছিল। ক্ষতি হয়েছিল বিমানবন্দরের বেশ কিছু অংশের। এবার তাই আগে থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বিমানবন্দরে।

গতকাল, সোমবার কলকাতা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের অফিসে যৌথভাবে বৈঠক করা হয়। ইয়াস ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় কলকাতা বিমানবন্দরকে বাঁচাতে সংশ্লিষ্ট পদক্ষেপ নেওয়ার কথা উঠে এসেছে আলোচনায়। বুধবার ইয়াস আছড়ে পড়বে ওডিশার উপকূলে, পূর্বাভাস বলছে তারই একটা বড় প্রভাব পড়বে পশ্চিমবঙ্গে। তাই বুধবার ভোর ৫ টা থেকে কলকাতা বিমানবন্দরের বিমান পরিষেবা ২৪ ঘন্টার জন্য বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিমানবন্দরের যে সমস্ত অস্থায়ী ব্যারিকেড আছে সে গুলি সরিয়ে ফেলার কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। কলকাতা বিমানবন্দরে যে সব বিমান পার্কিং করা হবে, সেগুলি দড়ি দিয়ে চাকার সঙ্গে আঁটোসাঁটোভাবে বেঁধে রাখা হবে, যাতে হাওয়ার প্রবল বেগে বিমানের কোনও ক্ষতি না হয়।

বিমানবন্দরের একাধিক গেট রয়েছে। সেই গেটে মোতায়েন থাকবে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিআইএসএফ এবং বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কর্মীরা। বিমানবন্দরে যে সকল উঁচু বাতিস্তম্ভ আছে, সেই বাতিস্তম্ভ থেকে আলো নামিয়ে ফেলা হচ্ছে। বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিআইএসএফ এবং বিমানবন্দর কর্মীদের সংশ্লিষ্ট ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বিমানবন্দরে জরুরি পরিষেবার কাজে নিযুক্ত সমস্ত দফতরের কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

এ দিকে বারবার গতি ও অভিমুখ বদল করছে ইয়াস। আবহাওয়াবিদরা আগে জানিয়েছিলেন, বালেশ্বরের ল্যান্ডফল করবে ইয়াস। এখন জানা যাচ্ছে, বালেশ্বরের আরও দক্ষিণ দিকে অর্থাৎ আরও বেশি ওড়িশার দিকে ইয়াসের আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আবহাওয়া দফতরের শেষ বুলেটিন অনুযায়ী, ল্যান্ডফল হতে পারে ভদ্রক ও বালেশ্বরের মাঝে, যা বাংলার জন্য আরও কিছুটা স্বস্তির খবর। কারণ পশ্চিমবাংলার উপকূল থেকে ইয়াসের দূরত্ব তাতে আরও কিছুটা বাড়ছে।