জেএনইউ-র পর বিশ্বভারতীর হোস্টেলে হামলা, অভিযোগ এবিভিপি-র বিরুদ্ধে

169

ওয়েব ডেস্ক, ১৬ জানুয়ারিঃ জেএনইউ-র ছায়া এবার বাংলার বুকেও।বুধবার রাতের অন্ধকারে বহিরাগতরা হামলা চালাল বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে। হামলায় অভিযোগের তীর এবিভিপির দিকে।এবিভিপির সঙ্গে সংঘর্ষে আহত হয়ে দুই এসএফআই সদস্য হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।বুধবার রাতে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের নিয়ে ঢুকে পড়ে এবিভিপি সদস্যরা এসএফআইয়ের উপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ। দু’ পক্ষের হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। স্বপ্ননীল মুখার্জি এবং ফাল্গুনী পান নামে দুই ছাত্র আহত হন।তাঁদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পিয়ারসন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে, সেখানেও হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ।

আহত সদস্য ফাল্গুনি পান জানিয়েছেন, বুধবার রাতের দিকে উপাচার্যের গাড়ির সঙ্গে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে এবিভিপির একদল সদস্য।রাত ১১টা নাগাদ বিদ্যাভবনের ছাত্রাবাসে বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের বৈঠক চলাকালীন বাঁশ, রড নিয়ে এসএফআই সদস্য স্বপ্ননীল মুখার্জির উপর চড়াও হয়ে মারধর করতে থাকে। তাঁর হাতে, পিঠে আঘাত লাগে।বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে দাঁড়িয়ে কেন সিএএ, এনআরসি–র প্রতিবাদ করছে বামপন্থী ছাত্র সংগঠন, সেই প্রশ্নও তোলেন তাঁরা।

বিগত কয়েকদিন ধরেই এনআরসি, সিএএ নিয়ে উত্তাল গোটা দেশ। আঁচ পড়েছে বিশ্বভারতীতেও।গত ৮ জানুয়ারী সেমিনারে এসে পড়ুয়াদের বিক্ষোভের মুখে পড়েছিলেন বিজেপি সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত। এসএফআই সহ অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের দাবি, সেই কারণে হামলা চালানো হয়েছে পড়ুয়াদের উপরে।এই ঘটনার পরে অভিযোগের আঙুল উঠছে এবিভিপি ছাত্র সংগঠনের সদস্য অচিন্ত বাগদী এবং সাবির আলির দিকে। পুরো ঘটনাটি ইতিমধ্যে বোলপুর থানাতে জানানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভিডিও ভাইরাল হয়ে যাওয়াতে কিঞ্চিত অবাক হয়েছেন প্রাক্তন পড়ুয়া থেকে শুরু করে অনেকেই।গুরুদেবের বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিস্থিতি যে এইরকম দিকে যেতে পারে তা দেখে অবাক হয়েছেন অনেকেই।

এর আগে ৫ তারিখ দিল্লির জেএনইউতে পড়ুয়াদের উপরে আক্রমণ করা নিয়ে নড়েচড়ে বসেছিল দেশের পড়ুয়ারা।এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোর জন্য প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিল দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা।আর এবারে আবারও সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল বিশ্বভারতীতে।