রাজ্যের কড়া হুঁশিয়ারীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বনধে অনড় কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলি

305

কোচবিহার ৭ জানুয়ারীঃ  “যেন কালি প্রাতে আরম্ভ হইবে মহারণ ।” কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নের আহ্বানে দেশ জুড়ে ধর্মঘটের প্রস্তুতি। বুধবার ভোর থেকে শুরু হবে চব্বিশ ঘন্টার বনধ। এই বনধকে ঘিরে কড়া পদক্ষেপ গ্রহন করেছে রাজ্য প্রশাসন। বনধ সফল করতে ঐ দিন সকাল থেকেই পথে নামার কথা ঘোষনা করেছে বাম সংগঠনগুলি। এদিকে বনধের নামে জুলুমবাজী করলে পুলিশ ব্যবস্হা গ্রহন করবে বলে জানানো হয়েছে।

কোচবিহার জেলা পুলিশ সুপার সন্তোষ নিম্বলকর বলেন , বনধের নামে কেউ অশান্তি করার চেষ্টা করলে , পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নেবে। এদিকে বনধের ইস্যুকে সর্মথন করলেও, বনধ্ সংস্কৃতির পক্ষে নয় তৃণমূল। তাই বনধ বিরোধিতার পথেই হাটছে তৃণমূল। তবে এই বিরোধিতা পথে নেমে হবে কিনা? এর কোন সঠিক ব্যখ্যা দেয়নি তৃণমূল নেতৃত্ব। দলের কোচবিহার জেলা কাযকারী সভাপতি পার্থপ্রতিম রায় বলেন , “আমরা বনধ  বিরোধী।”

বনধে বেশী বাস চালাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন নিগম। সংস্হার চেয়ারম্যান অর্পূব সরকার জানান, আমরা গোটা রাজ্যে ঐদিন অতিরিক্ত বাস চালিয়ে পরিষেবা দেব মানুষকে।