ঘট স্থাপনের মধ্য দিয়ে শুরু হল কোচবিহার বড়দেবীবাড়ির মূল পর্বের পূজা

18

কোচবিহার,২৯ সেপ্টেম্বরঃ আজ প্রতিপদ, প্রথা মেনে কোচবিহার দেবিবাড়ীতে শুরু হল মূল পর্বের পূজার কাজ। রবিবার ঘট স্থাপনের মধ্যদিয়ে এই পূজার সূচনা হয়। আগামীকাল বস্ত্র এবং অলঙ্কারে ভূষিত হবেন বড়দেবী। এদিন পঞ্চবামীয় ব্রাহ্মনের মন্ত্র উচ্চারনের মধ্যদিয়ে পূজার সূচনা হয়।

কোচবিহারের শিক্ষার সংস্কৃতির বিস্তার এবং পুজ্জা পাঠের জন্য কনৌজ অসম প্রভৃতি এলাকা থেকে ব্রাহ্মন নিয়ে আসা হয়েছিল। এদের ৫ টি গ্রাম দান করা হয়েছিল। এরাই পঞ্চবামীয় ব্রাহ্মন নামে পরিচিত। কোচবিহারের দেবী পূজার একটি প্রাচীন ঐতিহ্য রয়েছে। মহারাজা বিশ্ব সিংহ প্রথম ময়নাকাঠের গোঁজে এই পূজার সূচনা করেন। পরবর্তীতে মহারাজা নর নারায়ন এই পূজা মূর্তি গড়ে শুরু করেন। সেই মূর্তি গড়ার ক্ষেত্রেও রয়েছে ভিন্নতা।

তুফানগঞ্জের চামটা এলাকার বিশেষ মাটিতে তৈরি হয় ঐতিহ্যবাহী বড়দেবীর মূর্তি। এখানে দেবীর সঙ্গে নেই তার পুত্র কন্যা কার্ত্তিক গণেশ লক্ষ্মী সরস্বতী। আছে দেবীর সখী জয়া বিজয়া। ঐতিহ্যের এই পুজাকে ঘিরে আজও কৌতূহল রয়েছে সাধারন মানুষের মধ্যে। রাজ নিয়মেই আজও পালিত হচ্ছে কোচবিহারে বড়দেবীর পূজা। মূল পর্বের এই পূজা হয়ে থাকে দেবীবাড়ি মন্দিরে।

সেই মন্দিরটির আজ ভঙ্গদশা বলে অভিযোগ উঠেছে। ঐতিহ্যের এই দেবালয়ে চুঁইয়ে পড়ছে জল, খুলে পড়ছে পলস্তারা। মন্দিরটি ধুঁকছে সংস্কারের অভাবে। এমনই অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে স্থানীয়রা।

স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে মদন বণিক অভিযোগ করে বলেন, শতবর্ষ পেরিয়ে গেলেও আজ জরাজীর্ণ অবস্থা এই মন্দিরটির। তাঁরা আরও অভিযোগ করে বলেন, পূজার সময় রং করা হলেও এর কোন সংস্কার হচ্ছে না। এই দেবালয়ের দেখভালের কারও নজর নেই।