তুফানগঞ্জে গ্রাম পঞ্চায়েতে দলীয় পতাকা লাগাবার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে

237

তুফানগঞ্জ, ১৮ জানুয়ারিঃ তুফানগঞ্জ ১ নং  ব্লকের অন্দরানফুলবারি ২নং গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে দলীয় পতাকা লাগিয়ে দখল করার কৌশল নেবার অভিযোগ উঠল বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে। শনিবার সকালে পঞ্চায়েত কার্যালযয়ে বিজেপির দলীয় পতাকা লাগানো দেখতে পায় স্থানীয় বাসিন্দারা।

সেই সাথে রাজ্য সরকারের একাধিক প্রকল্পের প্রচার ব্যানার সহ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একাধিক ব্যানার পোস্টার ছেঁড়া অবস্থায় পড়েছিল বলে দাবি স্থানীয়দের। অন্দরান ফুলবাড়ী গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূলের দখলে রয়েছে। অঞ্চলটি বিজেপি দখল করার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে তৃণমূলের তরফে অভিযোগ করা হয়েছে। শনিবার সকালে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ফের চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে এলাকায়। বিষয়টি নিয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

লোকসভা নির্বাচনে কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ার কেন্দ্রে জয়ী হয় বিজেপি। এরপরই কোচবিহার জেলার বিভিন্ন এলাকায় গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যরা দল পাল্টে বিজেপিতে যোগদান করলে বেশ কিছু গ্রাম পঞ্চায়েত তাঁদের দখলে যায়। কিন্তু ফের দলছুটরা এবার তৃনমূলে যোগদান করলে ওই পঞ্চায়েতের রাজনৈতিক ক্ষমতা দখল নেয় তৃণমূল। ভয় বা ভক্তি যে কো নো কারনেই হোক জেলার এই দল বদলের রাজনীতি গ্রাম পঞ্চায়েত গুলির রাজনৈতিক সমীকরণ পাল্টে দেয়।

অন্দরানফুলবারি ২নং গ্রাম পঞ্চায়েতের রাজনৈতিক ক্ষমতা বর্তমানে তৃণমূলের। এই পঞ্চায়েতেও দলচ্ছুট অবস্থা তৈরি হয়েছিল। যার ফলে একসময়ে বিজেপির দখলে যায় আইন পঞ্চায়েতটি।ফের তাঁদের দখলে নিয়ে আসতে এই পঞ্চায়েত কার্যালয়েই দলীয় পতাকা তোলার অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে।এভাবে সরকারী কার্যালয়ে দলীয় পতাকা লাগানো নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে তুফানগঞ্জ জুড়ে।

যদিও এবিষয়ে বিজেপির স্থানীয় নেতাদের সাফাই দলীয় পতাকা তাঁদের কর্মীরা লাগায়নি। এটা বিজেপির পতাকা ব্যবহার করে বিজেপির নামে কুৎসা রটাবার রাজনৈতিক চক্রান্ত করেছে তৃণমূল। এদিকে এই ঘটনার তদন্তে নেমেছে তুফানগঞ্জ থানার পুলিশ। তারা ঘটনাস্থলে এসে পরিদর্শনও করেন।

এবিষয়ে তুফানগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ফজল করিম মিয়া অভিযোগ করে বলেন, শনিবার ভোররাতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পোস্টার ব্যানার ছিঁড়ে বিজেপির দুষ্কৃতীরা গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস দখলের চেষ্টা করে। আমরা ইতিমধ্যেই গোটা বিষয়টি লিখিতভাবে তুফানগঞ্জ থানায় জানিয়েছি।

অপরদিকে তুফানগঞ্জের বিজেপি নেতা উৎপল দাস বলেন, কার্যালয় দখলের কাজ কোনমতেই বিজেপির নয়, এটা তৃণমূলের নয়া কৌশল বিজেপির নামে কলঙ্কিত করার।