বিজেপি কর্মীর দেহ পরিবারের হাতে তুলে না দেওয়ায় ক্ষোভে,পথ অবরোধ বোলপুরে

13

পার্থ দাস,বীরভূম: বিজেপি কর্মী স্বরূপ গঁড়াইয়ের দেহ নানুর নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে ফের একবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল বোলপুর। বিকাল পর্যন্ত বিজেপি কর্মীর দেহ পরিবারের হাতে তুলে না দেওয়ায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন কর্মী-সমর্থকরা। বোলপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের সামনে টায়ার জ্বালিয়ে পথ অবরোধ শুরু করে বিজেপি কর্মীরা। আর এই বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেন অনুপম হাজরা ও সৌমিত্র খাঁ।
চলতি মাসের ৬ তারিখ নানুরের রামকৃষ্ণ গ্রামে পতাকা লাগানোকে কেন্দ্র করে তৃণমূল এবং বিজেপি দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সেই সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হন স্বরূপ গঁড়াই নামে এক বিজেপি কর্মী। সেদিন রাতেই তাকে প্রথমে বোলপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়, পরে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ এবং এনআরএস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু রবিবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু ঘটে।
এদিকে ঘটনার পরদিন স্বরূপের ভাই অরূপ গঁড়াই তৃণমূল পরিচালিত জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ কেরিম খান সহ ১১ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। ৬ তারিখ রাতের ঘটনায় নানুর থানার পুলিশ দুই পক্ষের ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু বিজেপির অভিযোগ মূল অভিযুক্ত কেরিম খানকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। এরপর মূল অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের দাবিতে সিউড়ির এসপি অফিসের সামনে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্না মঞ্চ গড়ে তোলে বিজেপি।
অন্যদিকে সোমবার এনআরএস হাসপাতাল থেকে স্বরূপের দেহ বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেক্ষেত্রেও পুলিশের বাধার সম্মুখীন হতে হয় বলে অভিযোগ বিজেপি নেতাদের। আরো অভিযোগ পরিবারের অনুমতি ছাড়াই মঙ্গলবার গভীর রাতে বরফের দেহ পুলিশ নিয়ে আসে বোলপুরে।
মঙ্গলবার থেকেই স্বরূপের পরিবারের কাছে পুলিশ আর্জি জানায় দেহ গ্রহণ করার জন্য। কিন্তু স্বরূপের পরিবার এইভাবে দেহ নিতে অস্বীকার করে। পুলিশের তরফ থেকে তার বাড়িতে নোটিশ পাঠানোও হয়। কিন্তু সেই নোটিশ ছিঁড়ে দেওয়া হয় বলে জানা গিয়েছে, কিন্তু কে বা কারা নোটিশ ছেড়েছে সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।
এরপর আজ সন্ধ্যাবেলায় ফের উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বোলপুর হাসপাতাল চত্বর। টায়ার জ্বালিয়ে বোলপুর হাসপাতালের সামনে পথ অবরোধ করে বিজেপি। বিজেপি নেতাদের অভিযোগ, “গতকাল রাতে পুলিশ স্বরূপের পরিবারকে না জানিয়ে দেহ বোলপুরের নিয়ে আসার পর বারবার আর্জি করে দেহ নিয়ে নেওয়ার জন্য। কিন্তু আজ আমরা যখন গাড়ি ভাড়া করে দেহ নিতে আসি তখন পুলিশ আবার বলছে দেহ দেওয়া যাবে না। কিন্তু কেন?”
এরকম পরিস্থিতিতে দীর্ঘক্ষন টালবাহানার পর অবশেষে রাত্রি নটা নাগাদ বিজেপি নেতৃত্ব এবং পুলিশের দফায় দফায় আলোচনায় বেরিয়ে আসে রফা সূত্র। বিজেপি নেতৃত্ব পুলিশকে জানায়, আজ তারা দেহ নেবেন না, আগামীকাল দেহ নেবেন। সেইমতো স্বরূপের পরিবার এবং বিজেপি নেতাকর্মীরা আজ ফিরে যাই, আগামীকাল তারা বোলপুর হাসপাতালে দেহ নিতে আসবেন।
কিন্তু এখানেই শেষ নয়, নিহত স্বরূপের পরিবার রাতেই সিদ্ধান্ত নেয় হাসপাতাল থেকে দেহ গ্রহণ করার। তারপর তারা রাত্রে এগারোটার পর দেহ নেন। হাসপাতাল চত্বরেই রাতে স্বরূপ গঁড়াইকে শেষ শ্রদ্ধা জানান বাঁকুড়ার সাংসদ সৌমিত্র খাঁ, বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা, বিজেপি জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডল এবং অন্যান্য নেতাকর্মীবৃন্দ। অবশেষে আজ স্বরূপ গড়াইয়ের মৃতদেহ গ্রাম থেকে দাহের জন্য মিছিল করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তার মৃতদেহ দাহ করা হবে কাটোয়ার শ্মশান ঘাটে।