দক্ষিন দিনাজপুরে করোনা যোদ্ধাদের সাহাজ্যের হাত বড়াল জেলা সাস্থ দফতর পরিচালিত ক-অপারেটিভ সংস্থা

16

বালুরঘাট, ২৪ মেঃ কোভীড হাসপাতালে কর্মরত করোনা যোদ্ধাদের সুস্থ্য রাখার লক্ষে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল জেলা স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীদের দ্বারা পরিচালিত কো-অপেরেটিভ সংস্থ্যা। আজ দক্ষিন দিনাজপুর জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের দপ্তর প্রাংগনে অবস্থিত দি ওয়েস্ট দিনাজপুর হেলথ এম্পলয়িস কো-অপেরেটিভ ক্রেডিট সোসাইটি লিমিটেড সংস্থ্যার  পক্ষ থেকে দক্ষিন দিনাজপুর জেলার দুই মহুকুমায় থাকা কোভীড হাসপাতালে কর্মরত করোনা যোদ্ধাদের হাতে তাদের শারিরিক ভাবে ফিট রাখতে ইলেকট্রনিক ভ্যাপার মেশিন গুলি তুলে দেওয়া হয়। 

কোভীড সময়ে নিজেদের সুস্থ্য রাখতে বিশেষজ্ঞ  ডাক্তারদের পরামর্শ মেনে প্রতিদিন দুই বেলা  নাক ও মুখ দিয়ে গরম জলের ভ্যাপার নেওয়া আবশ্যিক বলেই এই অতিমারির সময় প্রচলন রয়েছে।  সাধারন মানুষ তো বটেই যারা কোভীড হাসপাতালে থেকে প্রতিদিন পালা করে করোনা রোগীদের দেখভালের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। তাদের  নিজেদের সুস্থ্য রাখার ক্ষেত্রে এই ভ্যাপার নেওয়া অতি আবিশ্যিক বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।কিন্তু কাজ ও সময়ের ক্ষেত্রে বেশ কিছু বাধ্যবাধকতা থাকায় অনেকেই  বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মেনে নিজেদের ভ্যাপার  নেওয়ার ব্যাপারে সময় করে উঠতে পারেন না। বিশেষ করে হাসপাতালের মধ্যে একে তো আগুন জ্বালানো যায় না। দ্বীতিয়ত জল গরম করবার সামগ্রীর অভাব।  সে দিক দিয়ে দেখলে এই ইলেকট্রনিক ভ্যাপার মেশিন তাদের কাজের ফাকে চট জলদি কাজে আসবে। নিজেরাও ভ্যাপার নিয়ে নিজেদের সুস্থ্য রাখতে পারবেন।

দি ওয়েস্ট দিনাজপুর জেলা হেলথ এম্পলয়ীস কো-অপেরেটিভ ক্রেডিট সোসাইটি লিমিটেডের সভাপতি রঞ্জ্ন মজুমদার এই সামগ্রী করোনা যোদ্ধাদের হাতে তুলে দিয়ে জানান যারা কোভীড হাসপাতালে থেকে দিনরাত করোনা রোগীদের দেখভাল করছে তারা অনেকেই সময়ের অভাবে নিজেদের সুস্থ্য রাখতে ভ্যাপার নেওয়ার সময় পান না।অথচ তা এক্ষেত্রে তাদের জরুরি। সে দিকে লক্ষ রেখেই আজ তাদের সোসাইটির পক্ষ থেকে ৫০ টি ইলেকট্রনিক ভ্যাপার  মেশিন কোভীড হাসপাতালের কর্মরত করোনা যোদ্ধাদের হাতে তারা তুলে দিলেন।

অন্যদিকে করোনা যোদ্ধারা তাদের এই যুদ্ধে নিজেদের ফিট রাখার জন্য এই সংস্থ্যা এগিয়ে আসার জন্য তাদের সাধুবাদ জানিয়েছেন।এর ফলে তারা যেমন  নিজেরা  উপকৃত হবেন পাশাপাশি আরও বেশি করোনা রোগীদের সেবা করবার জন্য নিজেদের সচল রাখতে পারবেন বলে জানিয়েছেন অশোক সরকার নামে এক করোনা যোদ্ধা।