কোচবিহারে তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন ৪ কাউন্সিলার দাবী ভূষণ সিং-এর

910

কোচবিহার, ৮ ফেব্রুয়ারীঃ আসন্ন পুর ভোটকে সামনে রেখে জমজমাট রাজনীতি কোচবিহারে। ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কোচবিহার পৌরসভায় কার ভাগ্যে সিকি ছেড়ে এই নিয়ে কৌতূহলী মানুষ। এবারের নির্বাচন মিছক কংগ্রেস সিপিএম তৃণমূলের লড়াই নয়, রাজ্য, রাজনীতিতে এখন ফুলফাইটের আবহ। নতুন শক্তির উত্থানে বদলে গেছেন রাজনৈতিক সমীকরনও। এক সময়ের যুযুধান কংগ্রেস ও সিপিএম আজ জোট বেঁধেছে এই লড়াইয়ের সামিল হতে।

তাঁদের দাবী, শুধু কংগ্রেস সিপিএমই নয়, ধর্ম নিরপেক্ষ যেকোন শক্তিকে এই মঞ্চে সামিল করে পুরো যুদ্ধে সামিল হচ্ছে তাঁরা। অন্যদিকে উন্নয়নকে হাতিয়ার করে লড়াইয়ে নামছে তৃণমূল-কংগ্রেস। বসে নেই গেরুয়া শিবিরও। লোকসভা নির্বাচনে কোচবিহার সহ গোটা উত্তরবঙ্গে তাঁদের ভালো ফল হওয়ায় কোচবিহার পুর সভা দখলের স্বপ্ন দেখছে তাঁরা।

২০ আসন বিশিষ্ট কোচবিহার পৌরসভায় সংখ্যা লঘু হলেও ক্ষমতায় ছিল তৃণমূল কংগ্রেস। ২ নির্দল সমর্থককে নিয়ে ক্ষমতায় রয়েছে বর্তমান তৃণমূল পরিচালিত পুর ভোট। প্রথমে এই পুর বোর্ডের চেয়ার পার্সেন ছিলেন তৃণমূলের রেবা কুণ্ডু। বছর প্রায় আড়াই বছরের মধ্যে তাঁর এবং তাঁর কাউন্সিলার পুত্রের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। দলের নির্দেশে সেই সময় তাঁকে সরতে হয়। পরবর্তীতে পৌর প্রধান হন তৃণমূলের ভূষণ সিং।

বর্তমান এই পুর বোর্ডের বামেদের আসন রয়েছে ৮ টি, তৃণমূলের আসন রয়েছে ১০ টি এবং দুজন নির্দল কাউন্সিলার রয়েছেন। তবে, শহরের ৬ নং ওয়ার্ডে তৃণমূল কাউন্সিলার প্রণয়নের পর সেই আসনে উপনির্বাচন হয়নি। জানা যাচ্ছে ২ নির্দল কাউন্সিলার এবং ২ বামপন্থী কাউন্সিলার খুব শীঘ্রই তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করবে। ইতিমধ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের পৌরপ্রধান ভূষণ সিং-এর সাথে ঘনিষ্ঠতার অভিযোগে সিপিএমের এক কাউন্সিলারকে বহিষ্কার করেছে দল। ফরওয়ার্ড ব্লক তার ২ কাউন্সিলারকে দল থেকে সাসপেন্ড করে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, সিপিএমের বহিষ্কৃত কাউন্সিলার ও ফরওয়ার্ড ব্লকের এক সাসপেন্ড থাকা কাউন্সিলার তৃণমূলে যোগদান করছে। এদের সাথে এই বোর্ডকে সমর্থন যুগিয়ে যাওয়া ২নির্দল কাউন্সিলারও রয়েছেন।

কোচবিহার পৌরসভার পৌরপ্রধান ভূষণ সিং জানান, প্রাথমিক পর্বে ওই ৪ কাউন্সিলারের সাথে কথা হয়েছে, তাঁরা তৃণমূলে যোগদান করবে। বিষয়টি দলের জেলা নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে। জেলা নেতাদের হাত দিয়েই তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেওয়া হবে।