দাদাসাহেব ফালকের ধাঁচে ‘সত‌্যজিৎ রায় পুরস্কার’ নামক জাতীয় ক্ষেত্রে বার্ষিক পুরস্কার চালু কেন্দ্রীয় সরকারের

20

ওয়েব ডেস্ক, ২৩ ফেব্রুয়ারীঃ আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন। আর তার আগে বিনোদনের দুনিয়ায় বড়সড় ঘোষণা কেন্দ্র সরকারের। দাদাসাহেব ফালকের ধাঁচে ‘সত‌্যজিৎ রায় পুরস্কার’ নামের ও জাতীয় ক্ষেত্রে বার্ষিক পুরস্কার চালু করছে কেন্দ্রীয় সরকার। গতকাল কলকাতায় ন‌্যাশনাল ফিল্ম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশনের অনুষ্ঠানের পর কলাকুশলীদের সঙ্গে বৈঠকে কেন্দ্রীয় তথ‌্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী প্রকাশ জাওড়েকর এই ঘোষণাটি করেন। এই খবরে ইতিমধ্যে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে গোটা বাংলায়।

এদিন এনএফডিসি—এর এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ‌্যায়, পরিচালক গৌতম ঘোষ, সঙ্গীতশিল্পী রাশিদ খান, সুরকার ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্ত, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, অভিনেতা মমতা শংকর, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, আবির চট্টোপাধ্যায়, পাওলি দাম, তনুশ্রী চক্রবর্তী, চূর্ণী গঙ্গোপাধ্যায়, প্রযোজক মহেন্দ্র সোনি, নিসপাল সিং রানে, পরিচালক অনীক দত্ত, অরিন্দম শীল, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ‌্যায়, নন্দিতা রায় প্রমুখ তারকারা। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত, রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, শিশির বাজোরিয়া, সব‌্যসাচী দত্ত, শঙ্কুদেব পণ্ডাও ছিলেন।

জানা গেছে, সোমবার এই প্রক্রিয়াতেই কিংবদন্তি বিশ্ববন্দিত বাঙালি চিত্রপরিচালককে কেন্দ্রীয় তরফে সম্মান জানান হয়। তবে সত‌্যজিৎ রায় হলেন বাংলার প্রতিটি মানুষে আবেগ। তবে এই আবেগ এবার জায়গা পেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের পুরস্কার রুপে। এখন দেখার এই ঘোষণা কতটা প্রভাব ফেলে বাঙ্গালির মনে সেটাই এখন দেখবার।

অরিন্দম শীল জানান, ‘কীভাবে ইন্ডাস্ট্রির ভাল করা যায় তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সম্প্রতি রুদ্রনীল ঘোষ, যশ, হিরণ-সহ একাধিক কলাকুশলী যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে।’ টলি তারকাদের উপস্থিতি নিয়ে বাবুল সুপ্রিয় জানান, ‘রাজনীতির যোগ নেই। এটা সরকারি অনুষ্ঠান। আগামী দিনে বাংলা চলচ্চিত্রকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কী কী প্রয়োজন, সে সব নিয়েই বৈঠকে আলোচনা হবে।’