চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু কোচবিহারের তরুণ বিজেপি নেতা দীপঙ্করের, দাবী পরিবারের

2383

কোচবিহার, ৪ অক্টোবরঃ আর্থিক কারনে সময় মতো ওষুধ প্রয়োগ না হওয়ার জন্যই মৃত্যু হয়েছে বিজেপির যুব মোর্চার নেতা দীপঙ্কর দেবের। এমনই অভিযোগ করলেন মৃতের দাদা সুজিত দেব।সোমবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, আমার ভাইয়ের সঠিক ভাবে চিকিৎসা না হওয়ার কারনেই মৃত্যু হয়। শুধু তাই নয়, আমার ভাইয়ের এই ঘটনার পর দলীয়ভাবে চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়া হলেও শেষের দিকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতার কারনে ওষুধ প্রয়োগে অনেক গাফিলতির তৈরি হয় বলে জানান তিনি। সঠিক চিকিৎসা না হওয়ার কারনেই এই পৃথিবী ছেড়ে খুব তাড়াতাড়ি চলে গেল ভাই।

তিনি বলেন, চিকিৎসার পর আমার ভাই ধীরে ধীরে সেরে উঠছিল। কিন্তু তা সত্বেও তার সঠিক চিকিৎসারও গাফিলতি ছিল। তার কারনেই মৃত্যু হয় আমার ভাইয়ের। নিদিষ্ট চিকিৎসা না পাওয়ার পরও কারনেই আমার ভাই আজ চলে গেল। তিনি আরও বলেন, দীপঙ্কর মৃত্যুর কয়েকদিন আগে থেকেই তাঁকে ঠিক মতো ওষুধ দেওয়া হয়নি। শুধু তাই নয়, আমার ভাই আইসিইউতে থাকাকালীন সকালের ওষুধ তাঁকে দেওয়া হত সন্ধ্যা নাগাদ অর্থাৎ তাঁকে ঠিকঠাক ওষুধ দেওয়া হচ্ছিল না।

প্রসঙ্গত, কোচবিহার খাগড়াবাড়ি এলাকায় জমি আন্দোলনের অন্যতম নেতা তথা বিজেপির যুব মোর্চার সক্রিয় নেতা ছিলেন দীপঙ্কর দেব। জানা গেছে, দুর্গাপূজার অষ্টমীর রাতে কোচবিহার ২ ব্লকের পুন্ডিবাড়ি এলাকায় পথ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয় সে। এরপর তাঁকে ভর্তি করা হয় কোচবিহারের একটি বেসরকারি নাসিংহোমে। সেখানে দীর্ঘদিন ভর্তি থাকার কিছুদিন আগে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। এরপরই তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানেই গতকাল গভীর রাতে মৃত্যু হয় দীপঙ্করের।

এরপর তাঁর দেহ গতকাল বাড়িতে নিয়ে আসা হলে শেষকৃত্যের পর এরকম মন্তব্যে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তাহলে এটা কি সত্যিই কি দুর্ঘটনা নাকি পরিকল্পিতভাবে তাঁকে খুন করা হয়েছে তাঁর তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। এখানে শুধু দীপঙ্করের দাদাই নয়, তাঁর মাও একইভাবে সঠিক চিকিৎসার অভাবে ও সময় মতো ওষুধ না পাওয়ায় আক্ষেপ তাঁর।