জামাইকে ডেকে নিয়ে গিয়ে গলার নালি কেটে দেওয়ার অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে

321

বিশ্বজিৎ মণ্ডল, মালদাঃ সালিশি সভার নাম করে ডেকে জামাইকে গলার নলি কেটে খুনের অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে পুকুরিয়া থানার পরানপুর অঞ্চলের মির্জাতপুর এলাকায়। আক্রান্ত জামাই শেখ রেহমাতুল্লাহ(২৫) ভর্তি মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

জানা যায়, গত দু’বছর আগে শেখ মাসুদের ছেলের সাথে একই গ্রামের বাসিন্দা সাইদুল সব্জির মেয়ে সীমা বিবি সাথে সামাজিকভাবে বিবাহ হয়। শেখ রাহমাতুল্লাহ পেশাই ভিন রাজ্যের শ্রমিক। তাঁদের এক ছেলে রয়েছে। বিয়ের পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক বিবাদ লেগেই থাকত। সীমা বিবি বর্তমানে ছয় মাসের গর্ভবতী রয়েছেন। গত তিনদিন আগে বাবার বাড়ি যান সীমা বিবি। গতকালকে স্বামী রাহমাতুল্লাহ স্ত্রী সীমা বিবিকে আনতে গেলে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা বাঁধা দেয়।

তারপর শ্বশুরবাড়ির লোকজন জানান, তার মেয়ে এখন যাবেনা। প্রথমে গ্রামের লোক ডেকে সালিশি বসিয়ে মীমাংসা করে দিলে মেয়েকে পাঠাবো। আজকে বিকেলে আবার জামাইকে সালিশি বসবে বলে ফোন করে ডেকে পাঠান শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। সেইমতো জামাই শেখ রাহমাতুল্লাহ সেখানে যায়। তারপর শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাকে বেধড়ক মারধর করে।

মারধোর করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার গলার নলি কেটে রাস্তার ধারে ফেলে রাখে। এরপর রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তার ধারে পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে আড়াই ডাঙ্গা গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে বাড়ির লোক খবর পেয়ে সেখানে যান। চিকিৎসকেরা অবস্থার অবনতি দেখে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। বর্তমানে চিকিৎসাধীন মালদা মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের।

পরে পুকুরিয়া থানায় পরিবারের লোকেরা শ্বশুর সাইদুল সবজি শাশুড়ি সেলিমা বিবি সহ শশুর বাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। ঘটনার পর থেকে শ্বশুর সাইদুল সব্জি শ্বাশুরি সালেমা বিবি সহ পরিবারের লোকেরা পলাতক। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুকুরিয়া থানার পুলিশ।