ফিরহাদ হাকিম,মলয় ঘটকের সামনেই ব্যাপক উত্তেজনা নেতাজি ইন্ডোরে

241

ওয়েব ডেস্ক, ২৮ ডিসেম্বরঃ নেতাজি ইন্ডোরের সামনেই ব্যাপক উত্তেজনা। ছুঁড়ে ফেলা হল ফ্লেক্স। সেল্ফ এমপ্লয়েড লেবার অর্গানাইজেশনে বৈঠক ছিল স্টেডিয়ামে। আর সেই বৈঠকের পরেই এই উত্তেজনা।

সংগঠনের কর্মীদের দাবি, তাঁদের বেতন পরিকাঠামো থেকে সামাজিক সুরক্ষা, কোনও কিছুই ঠিকঠাক নয়। এদিনের সমাবেশ থেকে এ সংক্রান্ত কোনও স্পষ্ট বার্তা মিলবে বলে আশা করেছিলেন তাঁরা। কিন্তু পরে দেখা যায়, কিছুই কিছু না। সেই পুরনো আশ্বাস, প্রতিশ্রুতিই শুনিয়ে গেলেন রাজ্যের মন্ত্রীরা। এরপরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন তাঁরা। প্রথমে নেতাজি ইনডোরের ভিতরে বিক্ষোভ দেখান।

এরপর একে একে ফিরহাদ হাকিম, সাধন পাণ্ডে, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের মতো রাজ্যের মন্ত্রীরা বেরিয়ে যাওয়া পরই স্টেডিয়ামের বাইরে এসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। বিক্ষোভকারীদের মাঝে পড়েন মলয় ঘটক। কোনওমতে তাঁকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হলেও প্রায় ৪০ মিনিট ধরে পথ অবরোধ, অবস্থানে এসএলও কর্মীরা। পরিস্থিতি সামাল দিতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে পুলিসকে।

গোটা রাজ্যে প্রায় ৬৫০০ জন শ্রমিক বন্ধু বা এসএলও কর্মী রয়েছেন। নির্মাণ কর্মী, রিকশা চালক-সহ অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের কাছ থেকে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা ফর্ম পূরণ করে সেগুলি অনলাইন পোর্টালে এন্ট্রি ও গ্রাহকদের কাগজ পৌঁছে দেওয়ার কাজ করেন তাঁরা। অসংগঠিত শ্রমিকদের সমস্ত রকম সরকারি সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দেওয়াই এই শ্রমিক বন্ধুদের কাজ। তবে তাঁদের আয় একেবারেই সামান্য। ফর্ম প্রতি যে কমিশন পান তা মাত্র ২ টাকা।

অভিযোগ, এপ্রিল মাস থেকে সরকার গ্রাহকদের যেহেতু যোজনার টাকা সরাসরি দিয়ে দিচ্ছে, তাঁদেরও কমিশন বন্ধ। কোনও আয় নেই, পরিবার নিয়ে পথে বসার জোগাড়।

এদিনের সমাবেশে কোনও স্থায়ী সুরাহা মিলবে বলেই আশা করেছিলেন কয়েক হাজার শ্রমিক বন্ধু। কিন্তু তেমনটা হয়নি বলেই দাবি। সমাবেশে রাজ্যের তাবড় মন্ত্রীদের উপস্থিতি সত্ত্বেও অসংগঠিত শ্রমিকদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারেই থেকে গেল বলে অভিযোগ করেন শ্রমিক বন্ধুরা। এরপরই সমাবেশ শেষ হতেই ধুন্ধুমার শুরু হয়ে যায় সভাকক্ষে।

সমাবেশ স্থলে ঢোকার মুখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ ফিরহাদ হাকিম, সাধন পাণ্ডে, মলয় ঘটকদের ছবি দিয়ে যে গেট তৈরি হয়েছিল সেখানেই ভাঙচুর চলে। রাস্তায় বসে পড়েন প্রায় ৫০০ জন শ্রমিক বন্ধু। এর ফলে বাবুঘাট বা আকাশবাণী ভবনের পথ একেবারে অবরুদ্ধ হয়ে যায়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে নাকানি চোবানি খায় হেয়ার স্ট্রিট থানার পুলিস। হেয়ার স্ট্রিট থানার ওসি নিজে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কথা বলে বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু বিক্ষোভকারীরা নিজেদের অবস্থানে অনড়। ঘটনাস্থলে আসে লালবাজারের বিশাল পুলিস বাহিনীও। অবস্থানকারীদের নির্দিষ্ট ব্যারিকেডে রেখে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।