এবার থেকে প্রতিবছর রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগ হবে, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

116

ওয়েব ডেস্ক, ১০ জুলাইঃ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের দুর্নাম আছে। সেই দুর্নাম ঘোচাতে এবার সক্রিয় হল রাজ্য সরকার। শনিবার রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু আশ্বাস দিলেন, এবার থেকে প্রতি বছর প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ করা হবে।

শুক্রবারই উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশ তুলে নিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। সেজন্য শনিবার হাইকোর্টকে ধন্যবাদ জানান শিক্ষামন্ত্রী। ইন্টারভিউয়ের বিষয়ে স্কুল সার্ভিস কমিশনের তরফে বিস্তারিত জানানো হবে। সেইসঙ্গে তিনি আশ্বাস দেন, প্রতি বছর প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিকের টেট নেবে রাজ্য সরকার। সেই প্রক্রিয়া পুরোপুরি স্বচ্ছ রাখার চেষ্টা করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

এমনিতে বাংলায় শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে হামেশাই দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। তৃণমূল কংগ্রেসের আমলে তো দুর্নীতির অভিযোগে একাধিক শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া দীর্ঘদিন ধরে আইনি জটে ঝুলে রয়েছে। উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়া দীর্ঘদিন আইনি জটে আটকেছিল। তা নিয়ে বিরোধীরা লাগাতার প্রচার চালিয়েছেন। বিধানসভা ভোটেও শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ অন্যতম হাতিয়ার ছিল বিরোধীদের।

গত মাসের শেষের দিকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে মনোভাব স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন, শিক্ষক নিয়োগ ক্ষেত্রেই মেধাই সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ। লবি করে চাকরি পাওয়া যাবে না। তিনি বলেছিলেন, ‘তাঁদের মেধাই, তাঁদের পরিচয়। এ নিয়ে কারও কাছে লবি করার কোনও প্রয়োজন নেই। তাঁদের মেধাই তাঁদের সবথেকে পরিচয়। যাঁরা পরীক্ষা দিয়েছেন, পরীক্ষায় পাশ করেছেন, পাওয়ার অধিকারী, কোর্টে কেস চলছিল বলে এতদিন আটকে ছিল।’

সেইসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, পুজোর আগেই ১৪,০০০ উচ্চ-প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। ১০,৫০০ প্রাথমিক শিক্ষককেও পুজোর আগেই নেওয়া হবে। পুজোর আগেই তাঁরা চাকরি পাবেন। আগামী বছর মার্চের মধ্যে প্রাথমিক স্কুলে আরও ৭,৫০০ শিক্ষক চাকরি পাবেন। অর্থাৎ পুজোর আগে ২৪,৫০০ শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। আর আগামী বছর মার্চের মধ্যে মোট ৩২,০০০ শিক্ষক নিয়োগ করবে রাজ্য সরকার।