পরকীয়া সম্পর্কের অভিযোগে গৃহবধূকে চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে

289

ওয়েব ডেস্ক, ৩ নভেম্বরঃ পরকীয়া সম্পর্কের জেরে গৃহবধূকে দড়ি দিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে এলোপাতাড়ি মারধর করে মাথার চুল কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠল স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। পাশাপাশি এলাকায় এক যুবকের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে এই সন্দেহ জোরে সেই যুবককে গাছে বেঁধে তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করে ওই গৃহবধূর শ্বশুরবাড়ির লোকজন এবং ওই যুবককে নেড়া করে দেওয়া হয়। ঘটনাটি ঘটেছে দেগঙ্গার চাকলা গ্রাম পঞ্চায়েতের রায়কোলা এলাকায়। অভিযোগ রায়কোলা বৈদ্য পাড়ার বাসিন্দা শরিফুল বৈদ্য ও তার পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্র জানা যায় দেগঙ্গার কলসুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সেখের মোড় এলাকার মেয়ে আক্রান্ত গৃহবধুর বিয়ে হয় রায়কোলার শরিফুল বৈদ্য সঙ্গে। তাদের দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে। গৃহবধূর বাপের বাড়ির লোকের অভিযোগ, বাপের বাড়ি থেকে টাকা-পয়সাও আনার জন্য বিভিন্ন রকম ভাবে চাপ দেয়া হতো তার উপর। অবশেষে শশুর বাড়ি এলাকায় প্রতিবেশী এক যুবকের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে এই সন্দেহে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে গৃহবধুকে গাছে বেঁধে এলোপাতাড়ি মারধর করে মাথার চুল কেটে নেওয়া হয়। ঘটনার পর স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব প্রশাসন বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে।

মেয়েটির স্বামী শরিফুল বৈদ্য তালাকনামাতে তার থেকে জোরপূর্বক টিপ সই করিয়ে নেয় বলে অভিযোগ। দীর্ঘদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পরে মেয়েটির শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল। পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেছে গৃহবধুর পরিবার। আজ ওই গৃহবধুর বাড়িতে যায় এবং থানায় নিয়ে অভিযোগ দায়ের করায়। এদিকে অভিযুক্ত গৃহবধূর স্বামী শরিফুল বৈদ্য তার স্ত্রীকে নির্মমভাবে মারধর করে গাছে বেঁধে চুল কেটে নেওয়া অভিযোগ স্বীকার করে বিয়ে বলেন প্রতিবেশী যুবকের সঙ্গে স্ত্রীর পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল।

এমনকি স নিজের ঘরের মধ্যে স্ত্রীকে ওই যুবকের সাথে অশ্লীল অবস্থায় কয়েকবার হাতেনাতে ধরে ফেলেন। ওই ঘটনার দিন তার স্ত্রী দুটি কন্যা সন্তানকে ফেলে রেখে প্রতিবেশী যুবকের সঙ্গে পালিয়ে যাচ্ছিল। বাদুড়িয়া থানার রাজাপুর এলাকায় তারা ধরা পড়ে। সেখান থেকে তাদেরকে উদ্ধার করে নিয়ে এসে এলাকাবাসী গণপ্রহার করে এবং মারধর দেয়।