স্ত্রীর কাটা মাথা হাতে ঝুলিয়ে জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে আত্মসমর্পণ করল স্বামী!

2321

ওয়েব ডেস্ক, ২ ফেব্রুয়ারিঃ স্ত্রীকে খুন করে মুণ্ডু কেটে পুলিশের কাছে পৌঁছলেন স্বামী।স্ত্রীর মুন্ডু হাতে গাইলেন জাতীয় সঙ্গীত। অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশের বারাবাঙ্কিতে।যুবককে ওই অবস্থায় দেখে চমকে গিয়েছিলেন জাহাঙ্গিরাবাদ থানার পুলিশও।

পুলিশ জানিয়েছে, জাহাঙ্গিরাবাদ থানার অন্তর্গত বাহাদুপরপুর গ্রামের বাসিন্দা অখিলেশ রাওয়াতের সঙ্গে তার স্ত্রীর প্রায়ই ঝগড়া বাধত। শনিবার তা চৃড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছলে ক্ষিপ্ত অখিলেশ তার স্ত্রীকে হত্যা করে। তার পরে তাঁর শরীর থেকে মুণ্ড বিচ্ছিন্ন করে কাটা মাথা হাতে হেঁটে এসে থানায় আত্মসমর্পণ করে।

আত্মসমর্পণ করলেও স্ত্রীয়ের মুণ্ড কিছুতেই হাতছাড়া করতে চায়নি সে।উলটে পুলিশ জোর করে তা নিতে গেলে আচমকা জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে ওঠে এবং ‘ভারতমাতা কি জয়’ স্লোগান দিতে শুরু করে ওই যুবক। কয়েক মিনিট ধস্তাধস্তির পরে অবশেষে উদ্ধার করা যায় শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন মৃতার মুণ্ড।

স্ত্রীকে হত্যার দায়ে গ্রেফতার করা হয়েছে অখিলেশ রাওয়াতকে।এ দিকে বীভত্স এই ঘটনার কথা ছড়িয়ে পড়লে এলাকাজুড়ে তীব্র আতঙ্ক সৃষ্টি হয়।পুলিশ সুপারিন্টেন্ডেন্ট অরবিন্দ চতুর্বেদী জানিয়েছেন, ঘটনার মূলে রয়েছে ঘরোয়া ঝগড়া। ধৃতের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। পাশাপাশি, হত্যাকাণ্ডে অনুসন্ধানে নেমেছেন গোয়েন্দারা।

এমন ঘটনার হদিশ মিলেছে আগেও।ভয়ঙ্কর এমনই এক ঘটনার সাক্ষী থেকেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা । গত বছর এপ্রিলে দক্ষিণ ২৪ পরগনার এক যুবক পাথরপ্রতিমা থানায় সটান ঢুকে আসেন। দেখা যায়, তার পিঠে রয়েছে একটি স্কুল ব্যাগ।যা থেকে ঝরঝর করে রক্ত পড়ছে। ব্যাগটি পুলিশ হেফাজতে নিতেই দেখা যায়, ওটার ভিতর রয়েছে একটা কাটা মুণ্ডু। যুবক জানায় নিজের স্ত্রীর মুণ্ড কেটে ব্যাগে ভরে সে থানায় এসেছে আত্মসমর্পন করতে।ওই যুবকের নাম অভিজিৎ দাস।