“দলে আমি বেমানান”, রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারন সম্পাদক সম্রাট তপাদারের

313

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনাঃ দলে চূড়ান্ত অপমানিত হয়ে রাজনীতি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারন সম্পাদক সম্রাট তপাদার। এদিন ব্যারাকপুরের নাপিত পাড়ায় তৃণমূলের কর্মীসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে হঠাৎ কেঁদে ফেলেন প্রদেশ যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারন সম্পাদক সম্রাট তপাদার।

সেখানে তিনি বলেন, ‘দলের জন্য যতটা পেরেছি করেছি। আমৃত্যু আমি তৃণমূলের সমর্থক হিসেবে থাকব। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভোট দেব। অভিষেক বন্দোপাধ্যায় আমার নেতা থাকবে। তবে দলে থেকে এই অবজ্ঞা অপমান সহ্য হচ্ছে না। লক ডাউনের সময় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে কাজ করেছি। তৃণমূল যুব শক্তি শাখার তৃণমূল কংগ্রেস দলের পর্যবেক্ষক হিসেবে নদিয়া, বীরভূম, মুর্শিদাবাদের দ্বায়িত্ব সামলেছেন তিনি। দলের নির্দেশে বারংবার সংগঠনের কাজে ছুটে গেছেন তিনি। কর্মীসভা করেছেন কয়েকশ। সম্রাট তপাদার দলে টিকিট পাবেন এরকম প্রত্যাশা ছিল তার অনুগামীদের। তবে দল তাকে টিকিট দেয়নি।’

উল্লেখ্য, ব্যারাকপুরের নাপিত পাড়ার বাসিন্দা সম্রাট তপাদার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের হাত ধরে রাজনীতিতে এসেছিলেন। গত ২৮ বছর তিনি রাজনীতি করেছেন। প্রথমে জাতীয় কংগ্রেসের নেতা ছিলেন, পরে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। তবে উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে ক্রমশ কোণঠাসা হয়ে পড়ছিলেন সম্রাট। সোমবার হঠাৎ কর্মীসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে সম্রাট তপাদার দলের কর্মীদের সামনে ঘোষণা করেন, ‘আমি রাজনীতি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দলের মধ্যে থেকে যে অবজ্ঞা অপমান আমাকে সহ্য করতে হচ্ছে তা আর সহ্য হচ্ছে না। বাড়িতে পরিবারকেও সময় দিতে পারছিলাম না। আমি রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। এই রাজনীতিতে আমি বড় বেমানান। তাই নিজেকে মানিয়ে নিতে পারলাম না। দলের কর্মীদের ধন্যবাদ।’