‘আমি মন্দির,মসজিদ দুটোই বাছলাম’ টুইট সাংসদ নুসরত জাহানের

219

ওয়েব ডেস্ক, ৫ আগস্টঃ আমি মন্দির, মসজিদ দুটোই বাছলাম। অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমি পুজোর কয়েক ঘন্টা আগে টুইট করে একথাই জানালেন তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান।

দীর্ঘদিনের আইনি টানাপোড়েনের পর অবশেষে অযোধ্যায় হল রাম মন্দিরের ভূমিপুজো। আর সেই মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই অনুষ্ঠান ঘিরে সেজে উঠেছে রামনগরী অযোধ্যা। তবে রাম মন্দিরের ভূমি পুজোর আগে থেকেই সোশ্যাল মিডিযায় তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়েছে নতুন করে।

টলিগঞ্জের প্রথম সারির নায়িকা নুসরত জাহান কোনও সময়ই তাঁর পিছু ছাড়ে না বিতর্ক। তবে মনের কথা মন খুলে বলা থেকে কোনওদিনই পিছিয়ে আসেন না বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ। সংখ্যা লঘু পরিবারের মেয়ে নুসরত, অথচ হিন্দু পরিবারের বউমা তিনি। তাঁর বিয়ের পরেও কম বিতর্ক হয়নি, শাঁখা-সিঁদুর পরা নিয়ে ধর্মের ধ্বজাধারীদের রোষের মুখে পরতে হয়েছে নুসরতকে। কিন্তু সেইসব বিতর্ক গায়ে মাখেন না তিনি।

নুসরত বহুবার জানিয়েছেন, ‘ধর্ম যার যার তবে উৎসব সবার।‘  তাই তো দশমীর সিঁদুর খেলা, থেকে ইদ কিংবা রথযাত্রা-সব উত্সবেই শামিল হন তিনি। অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমি পুজোর কয়েক ঘন্টা আগে নুসরত বললেন, ‘আমি মন্দির,মসজিদ দুটোই বাছলাম।‘

নিজের টুইটে হৃত্বিক রোশনের প্রাক্তন স্ত্রী সুজানের দিদি ফারহা লিখেছেন,‘একটা মন্দির কিংবা একটা মসজিদকে সমর্থন করলে কেন আমাকে একটা দিক বেছে নিতে হবে। আমার চোখে দুটোই অসম্ভব সুন্দর এক ধর্মীয় সৌধ।কেন সব কিছুর মধ্যে এত রাজনীতির রঙ থাকবে? আমরা কী ভিতরের শুভশক্তিটা হারিয়ে ফেলছি না ? কেন একটাকে বেছে নিতেই হবে? কেন ভালোবাসা আর সম্মান দুইয়ের প্রতি সমানভাবে থাকবে না? আমার রয়েছে’।

এরপরই ডিজাইনার ফারহা আলির এই টুইট, রি-টুইট করেন নুসরত। সেখানেই যোগ করেন এই হ্যাশট্যাগ #IchoosebothTempleandMosque। এদিন টুইট করে সম্প্রীতির বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

টুইটারে তিনি লিখেছেন, “হিন্দু, মুসলিম, শিখ, খ্রিস্টান/একে অপরের ভাই-ভাই! আমার ভারত মহান,/মহান আমার হিন্দুস্তান! আমাদের দেশ তার চিরায়ত বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্যের ঐতিহ্যকে বহন করে চলেছে, এবং আমাদের শেষ নিশ্বাস পর্যন্ত ঐক্যবদ্ধভাবে এই ঐতিহ্যকে সংরক্ষিত রাখবো”।