”চাইলে দল ছাড়তে পারেন, আমার শুভেচ্ছা সঙ্গে থাকবে” দলীয় নেতাকে জানালেন নীতীশ

513

ওয়েব ডেস্ক, ২৩ জানুয়ারিঃ দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির সঙ্গে জোট করায় দলের অভ্যন্তরে বিদ্রোহ শুরু হয়েছে জেডিইউ-তে। জোটের এই খবর প্রকাশ্যে আসার পরই মুখ খুলেছেন জেডিইউ নেতা পবন কুমার।তিনি সিএএ ও জোট শরিক বিজেপিকে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন।এই বিষয়ে নীতীশ কুমারের কাছে নীতিগত ব্যাখ্যা দাবি করেন তিনি। তার পরেই ক্ষুব্ধ নীতিশ পবন ভার্মাকে কার্যত দরজা দেখিয়ে দিলেন।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নীতিশ বলেন, “নিজের অসন্তুষ্টি প্রকাশ করার এটা উপায় নয়, তিনি(বর্মা) বলেছেন আমি তাঁকে কিছু জিনিস বলেছি, তিনি যা বলেছেন আমি কি তা আপনাকে বলতে পারি? আমি তাঁকে শ্রদ্ধা করি, তিনি অন্য কোনও দলে যাওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতেই পারেন, আমার শুভেচ্ছা সঙ্গে থাকবে।”

দিল্লি নির্বাচনে বিজেপির সঙ্গে জোট বাঁধা নিয়ে প্রশ্ন তুলে গত বুধবার জেডিইউ প্রধান নীতিশ কুমারকে চিঠি দিয়েছিলেন পবন। আর সেই চিঠিতেই বিজেপি সম্পর্কে নীতিশের ব্যক্তিগত মতামত প্রকাশ্যে এনে বিহারের ও তাঁর দলকে বড়সড় অস্বস্তির মধ্যে ফেলে দেন পবন।

চিঠিটি ট্যুইটারে পোস্ট করেন পবন। অতীতে দুজনের একান্ত আলোচনায় যা কথআবার্তা হয়েছিল তা উদ্ধৃত করে পবনের দাবি, সেখানে বিজেপির জোর সমালোচনা করেছিলেন নীতিশ। পবন জানান, তিনি জেডিইউ সংবিধানে বলা লাইন, নীতিশের ব্যক্তিগত অনুভব-অনুভূতি, প্রকাশ্যে দলের কার্যকলাপের সঙ্গে মানিয়ে চলতে পারছেন না।

এনআরসি-সিএএ নিয়ে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমারের সঙ্গে ক্রমেই দূরত্ব বাড়ছে বিজেপির। বিহার বিধানসভায় দাঁড়িয়ে এর আগে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিতর্কের প্রয়োজনের কথা বলেছিলেন নীতিশ। পাশাপাশি জানিয়ে দেন বিহারে এনআরসি বা নাগরিক পঞ্জির কোনও দরকার নেই। তা স্বত্বেও দিল্লির বিধানসভা ভোটে বিজেপির সঙ্গে জোট করে লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নীতিশ। যার ফলে বিহারের বাইরে এই প্রথম কোনও রাজ্যে ভোটে লড়ছে জেডিইউ।