কোচবিহারে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী চাকরির চেয়ে আন্দোলনে কেএলও-রা

132

কোচবিহার, ২৪ জানুয়ারিঃ মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সকলের চাকরির ব্যবস্থা করার দাবি নিয়ে কোচবিহারে আন্দোলনে নামলেন কেএলও এবং কেএলও লিঙ্কম্যানদের সংগঠন।

রবিবার কোচবিহার পুরসভার সামনে জমায়েত হয়ে ওই দাবি জানায় তাঁরা। তাঁদের বক্তব্য, মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি মেনে স্পেশাল হোমগার্ডে কেএলও এবং কেএলও লিঙ্ক ম্যানদের চাকরি দেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ১৫৭ জন চাকরি পেয়েছেন। কিন্তু একই ধারায় মামলা থাকা স্বত্বেও তাঁদের চাকরিতে নিয়োগ করা হচ্ছে না।

কেএলও এবং কেএলও লিঙ্কম্যানদের পক্ষে অরুণ নারায়ণ বলেন, “কোন পদ্ধতিতে এই নিয়োগ হচ্ছে, তা নিয়ে আমরা অন্ধকারে। কেউ কেউ চাকরি পেয়েছেন। কিন্তু অনেকেই পান নি। বাম আমলে যে কেএলও-রা বিশেষ অনুদান পেয়েছেন, তাঁরাও আজ বঞ্চিত হয়ে রয়েছেন। তাই আমরা পথে নেমেছি। প্রয়োজনে আরও আন্দোলন গড়ে তুলবো।”

নব্বই এর দশকে কোচবিহার সহ গোটা উত্তরবঙ্গ জুরে পৃথক রাজ্যের দাবিতে জঙ্গি আন্দোলন গড়ে তোলেন কেএলও সদস্যরা। পরে ২০০৩ সালে কেন্দ্রীয় সরকার ভুটান অপারেশন করলে কেএলও জঙ্গি সংগঠন ছিন্নবিচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। বিভিন্ন জায়গায় প্রচুর কেএলও জঙ্গি পুলিশের হাতে ধরা পড়ে।

তৎকালীন বাম সরকার ওই জঙ্গি সংগঠনের সাথে যুক্তদের আত্মসমর্পণ করলে পুনর্বাসন দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। সেই অনুযায়ী বেশ কিছু আত্মসমর্পণকারী জঙ্গি ও তাঁদের লিঙ্ক ম্যানকে পুনর্বাসন দেওয়ার ব্যবস্থা হয়।

পরবর্তীতে ২০১১ সালে বাম জামানার পতন হলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই কেএলও জঙ্গি এবং লিঙ্কম্যানদের চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। সেই প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ইতিমধ্যেই বেশ কিছু নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ওই সংগঠনের সাথে যুক্ত থাকা স্বত্বেও যারা এখনও পুনর্বাসন বা চাকরি কিছুই পান নি, তাঁরা এবার আন্দোলনের পথে নেমেছে বলে মনে করা হচ্ছে। ভোটের আগে এই আন্দোলন কি আকার নেয়, এখন সেটাই দেখার।