বাড়ছে সন্দেহজনক রোগীর সংখ্যা, দক্ষিন দিনাজপুরে নার্সিংহোমেও খুলবে আইসোলেশন ওয়ার্ড

23

বালুরঘাট ২০ মার্চঃ করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য এবার সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি নার্সিং হোম ও পুরসভা মাতৃসদন গুলিতে  আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলার জন্য উদ্যোগী হলো দক্ষিন দিনাজপুর জেলা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সেই লক্ষে দক্ষিন দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর শহরে বেসরকারি নার্সিং হোম ও মাতৃসদন পরিদর্শন করলেন জেলা শাসক নিখিল নির্মল। অতিরিক্ত জেলা শাসক প্রনব ঘোষ সহ জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সুকুমার দে।

যদিও এখনও পর্যন্ত দক্ষিন দিনাজপুর জেলায় করোনা আক্রান্তের কোন খবর নেই। তবে এই জেলা থেকে যেহেতু বিভিন্ন রাজ্যে শ্রমিকের কাজ করতে গিয়ে থাকে প্রচুর যুবক। তাই জেলা প্রশাসন এব্যাপারে আগাম সতর্কতা মুলক ব্যবস্থ্যা হিসেবে বালুরঘাট জেলা হাসপাতাল ও গংগারামপুর মহুকুমা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলার পাশাপাশি গঙ্গারামপুর মহুকুমার বেসরকারি নার্সিং হোম গুলিতে আইসোলেশন ওয়ার্ড গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

প্রসঙ্গত গত কালই মুখ্যমন্ত্রী এই ব্যাপারে নির্দেশ দেন প্রয়োজনীয়তা বুঝলে বেসরকারি নার্সিং হোম গুলিতে আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলার জন্য।

গঙ্গারামপুরের পুনর্ভবা নার্সিং হোমের ১০ টি শয্যা, জীবন জোত্যি নার্সি হোমের উপর তলাতে ১০ টি শয্যা ও পুরসভার নতুন ভবনকেও তারা আইসোলেশন ওয়ার্ড করার জন্য ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে প্রস্তুত রাখার জন্য স্বচেষ্ট হয়েছে জেলা প্রশাসন বলে জানা গেছে।

এদিকে জেলায় করোনাতে কেউ আক্রান্ত না হলেও ভিন রাজ্য বা বিদেশ থেকে আসা ছাত্র ছাত্রী বা শ্রমিকদের জেলায় আসার সাথে তাদের ১৪ দিনের স্বেচ্ছা গৃহপর্যবেক্ষনে রাখার ব্যবস্থ্যা করা হয়েছে।ইতিমধ্যে সংখ্যা টা ১৪৫ এ গিয়ে দাড়িয়েছে। অপরদিকে নতুন করে গ্রাম গঞ্জে যারা প্রশাসনের চোখ এড়িয়ে নিজের বাড়িতে এসে থাকছেন। জেলা প্রশাসন সতর্কতার জন্য তাদেরকে  ধরে ধরে চিহ্নিত করে ১৪ দিনের জন্য গৃহ সুরক্ষায় থাকার ব্যাপারে কঠোর মনোভাব প্রদর্শন করতে শুরু করেছে। তাদের চিহ্নিত করতে শুক্রবার গ্রাম পঞ্চায়েতদের ও পুরসভার কাউন্সিলরদের কাছে সরকারি নির্দেশ পাঠিয়ে বলা হয়েছে খবর পেলেই যেন সে সব পরিবারে আশা কর্মীরা যায় এবং ভিন রাজ্য থেকে আসা কোনো ব্যক্তি থাকলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় মেডিক্যাল চেকআপের জন্য।তেমন কিছু যদি নাও মেলে তাহলেও তাদের সতর্কতা মুলক ব্যবস্থ্যা হিসেবে অবশ্যই যেন ১৪ দিনের স্বেচ্ছা গৃহপর্যবেক্ষনের মধ্যে থাকে।তাদের পরিবারকেও সব রকম সতর্কতা মুলক বিধি মেনে চলার পরামর্শ দেওয়ার কথাও গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য প্রধান ও পুরকাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে জারি করা নির্দেশে বলা হয়েছে জেলা প্রশাসনের তরফে।