ফের প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতির নিশানায় সাংবাদিকরা

849

কোচবিহার,২১ অক্টোবরঃ মেজাজ হারিয়ে ফের সাংবাদিকদের সাথে দুব্যবহার করলেন প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি সুব্রত বক্সী। বার বার প্রতিবার তিনি কোচবিহার সফরে এসে সাংবাদিকদের সাথে বির্তকে জড়িয়ে পড়ছেন। সোমবার ছিল কোচবিহার উৎসব অডিটোরিয়ামে জেলা তৃণমূল কংগ্রেস বিজয়া সম্মিলনী অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সুব্রতবাবু।

এদিন তিনি সভা মঞ্চে বক্তব্য শুরু করলে সেই ভিডিও রেকর্ডিং করতে যান এক সাংবাদিক, তখনই তিনি মেজাজ হারিয়ে বক্তব্য থামিয়ে দেন তিনি। এরপর ওই সাংবাদিক মঞ্চের উপর থেকে কার্যত ধমক দিতে থাকেন তিনি। টার এই উগ্র আচরণে হতবাক হয়ে পড়েন মঞ্চে বসে থাকা অন্যান্যরা নেতৃত্বরা। এদিনের এই ঘটনায় তীব্র ধিক্কারে সবর হয় সাংবাদিকেরা।

প্রসঙ্গত, সুব্রতবাবুর সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ নতুন নয়। এর আগেও মেখলিগঞ্জে একটি কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে এক সাংবাদিকের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন তিনি। সেখানেও এক সাংবাদিককে মঞ্চ থেকে নামিয়ে দেবার অভিযোগ উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে। এখানেই শেষ নয়, এরআগেও বিভিন্ন জায়গায় সুব্রতবাবুর বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছিল।

তার এই আচরণে ক্ষুব্ধ কর্মরত সাংবাদিকরা। বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠনের পক্ষ থেকে থেকেও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করা হয়। কোচবিহার প্রেস ক্লাবের সহ-সম্পাদক হীরক রায় বলেন, সাংবাদিকরা পেশার তাগিদেই কাজ করতে গিয়েছিল, কিন্তু এত বড় মাপের নেতার বারবার এধরনের আচরণ কোনও ভাবেই কাম্য নয়। এদিন তৃণমূল কংগ্রেসের বিজয়া সম্মিলনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের আমন্ত্রন করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তারপরেও এই ধরনের ঘটনা দুঃখজনক।

ঘটনার নিন্দা করা হয়েছে বিজেপির পক্ষ থেকে। দলের কোচবিহার জেলা নেতা নিত্যানন্দ মুন্সী বলেন, গনতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ সংবাদ মাধ্যম। সেটা সুব্রত বক্সীর মতো দায়িত্বশীল নেতার বোঝা উচিত। ক্ষমতার দম্ভ ও ক্ষমতা হারাবার আশঙ্কায় তাঁরা এধরনের আচরণ করছেন। বিজয়া সন্মিলনীর মতো শুভেচ্ছা বিনিময়ের অনুষ্ঠানে সুব্রত বক্সীর মতো এই আচরণ কাম্য নয়। তিনি বারবার কোচবিহারের সাংবাদিকদের সাথে এধরনের ব্যবহার করছেন তা বুঝে উঠতে পারছি না।