সিএএ বিরোধী পথসভা থেকে আটক কানহাইয়া কুমার

324

ওয়েব ডেস্ক, ৩০ জানুয়ারিঃ সিএএ, এনআরসি এবং এনপিআর বিরোধী যাত্রা বিহারের চম্পারণ থেকে বার করতে চেয়েছিলেন সিপিআই নেতা কানহাইয়া কুমার। তার নাম দেওয়া হয়েছিল জন গণ মন যাত্রা। কথা ছিল যাত্রা চলবে এক মাস। তার আগেই আজ বিহার পুলিশ আটক করল কানহাইয়া কুমারকে।

প্রশাসনের এই আচরণের কড়া নিন্দা করে স্বভাবোচিত ভঙ্গিতে বামপন্থী ছাত্রযুব নেতা বলেন, “আমরা নাগরিক কিনা, তার কাগজ দেখাতে বলছেন। অথচ আমাদের যে আটক করা হবে, তার কাগজ দেখাতে পারছে না।” এখানেই শেষ নয়, এদিন গাঁধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসের প্রসঙ্গ তুলে কেন্দ্রের শাসক দলকেও একহাত নেন তিনি।কানহাইয়া বলেন, “গাঁধীকে ৬ বার হত্যার চেষ্টা করা হয়। বিভাজনের কারণে গাঁধীকে হত্যা করা হয়নি।তাঁকে হত্যা করা হয়েছে কারণ, তিনি সর্ব ধর্মের কথা বলতেন। সবার সৎ বুদ্ধির কথা বলতেন। তিনি বলতেন, ‘ঈশ্বর-আল্লাহ-তেরো নাম/সব কো সনমতি দে ভগবান’। হিন্দু, মুসলমানের মধ্যে দূরত্ব তৈরি করার চেষ্টা করা হচ্ছে।”

তাঁর আটক হওয়া নিয়ে ট্যুইটে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতা লেখেন, “গাঁধীর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে আজ থেকে এক মাসের জন গণ মন যাত্রা শুরু হওয়ার কথা ছিল।সিএএ-এনআরসি-এনপিআর বিরোধী এই যাত্রায় সামিল হতে সমাজের সর্ব স্তরের মানুষ সমবেত হয়েছে। তবে আমাদের সবাইকে কিছুক্ষণ আগে প্রশাসন আটক করে নিয়ে যায়।”

কানহাইয়া কুমার এবং আরও কয়েকজন আটক হওয়ার পরে চম্পারণের ভীতিহারওয়া গান্ধী আশ্রমে এখন কয়েক হাজার লোক অবস্থান করছেন।এদিন সকালে কানহাইয়া কুমার ওই আশ্রমে গান্ধীজি ও কস্তুরবা গান্ধীর মূর্তিতে মালা দেন। পরে গান্ধী ময়দানে গিয়ে তাঁর জনসভায় ভাষণ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু জেলাশাসক জানান, তাঁকে জনসভা করার যে অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, তা বাতিল করা হচ্ছে।