আজ দুপুরে দ্বিতীয়বারের জন্য হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন খট্টর

167

ওয়েব ডেস্ক, ২৭ অক্টোবরঃ দ্বিতীয়বারের জন্য হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন মনোহরলাল খট্টর। এদিনই রাজ্যপাল সত্যদেয় নারিন আর্য্যের কাছে সরকার তৈরির আবেদন জানাবেন খট্টর। রবিবারই শপথগ্রহণ করবেন তিনি। দুপুর ২টো ১৫ মিনিটে রাজভবনে শপথ নেবেন খট্টর। দুষ্মন্ত চৌটালার দল জননায়ক জনতা পার্টি (জেজেপি) থেকে একজন বিধায়ক হবেন উপমুখ্যমন্ত্রী। সেটা খোদ দুষ্মন্ত হবেন না অন্য কেউ,সিদ্ধান্ত নেবে জেজেপিই। পাশাপাশি, হরিয়ানায় মন্ত্রিসভা গঠন নিশ্চিত করতে পারলেও মহারাষ্ট্রে শিবসেনার অনড় মনোভাবের কারণে ঝুলে রইল দেবেন্দ্র ফড়নবীশের ভাগ্য।

শনিবার দিল্লি থেকে রাজ্যে ফেরেন খট্টর। তারপরই বসে বিজেপির পরিষদীয় দলের বৈঠক। সেখানেই নেতা নির্বাচিত করা হয় মনোহরলাল খট্টরকে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ ও বিজেপির সাধারণ সম্পাদক অরুণ সিং। ওই বৈঠকের পর হরিয়ানার রাজ্যপাল সত্যদেও নারাইন আর্য-এর সঙ্গে দেখা করেন খট্টর। রাজ্যপালের কাছে সরকার গড়ার দাবি জানান তিনি। এরপর রাজ্যপাল তাঁকে সরকার গড়ার আমন্ত্রণ জানান।

৯০ আসনের হরিয়ানা বিধানসভায় কোনও দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি সদ্য বিধানসভা নির্বাচনে। ম্যাজিক সংখ্যা ৪৬ থেকে ৬ আসন দূরে থেমে যায় বিজেপির ভাগ্য। কংগ্রেস পায় ৩১ আসন। দুষ্মন্তের দলীয় প্রার্থীরা জিতেছেন ১০টি আসনে। এই পরিস্থিতিতে বিজেপিকে নিঃশর্ত সমর্থনের কথা জানান নির্দল প্রার্থী হিসেবে জিতে আসা গোপাল কান্ডা। তাঁর সঙ্গে আরও পাঁচ বিধায়ক রয়েছেন বলে দাবি করার পর তাঁদের সঙ্গে বৈঠকও করেন বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপির তরফে ঘোষণাও করা হয়, নির্দলের বিধায়করা তাদের সঙ্গে রয়েছেন।

অন্যদিকে, দুষ্মন্ত আগেই জানিয়ে রেখেছিলেন, বিজেপি বা কংগ্রেস- কেউই তাঁর কাছে অচ্ছুত নয়। যে দল তাঁদের যোগ্য সম্মান দেবে, তাদের সমর্থন করবে জেজেপি। তারপরেই চূড়ান্ত হয় সিদ্ধান্ত।