থাকার ঘরের অভাব, খাবার জোগাতেও ছুটছে কালঘাম, কেন্দ্রের দেওয়া নিরাপত্তা রক্ষীদের নিয়ে নয়া বিপাকে বিজেপির বিধায়িকা

921

ওয়েব ডেস্ক, ২৪ মেঃ স্বামী রাজমিস্ত্রি, ভোটের আগে পর্যন্ত তিনি নিজেও দিনমজুরের কাজ করতেন। বাড়িঘর বলতে মাথা গোঁজার জন্য যতটুকু দরকার, সেটাই রয়েছে। কিন্তু ভাগ্যের ফেরে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বাঁকুড়ার শালতোর কেন্দ্র থেকে বিজেপির প্রার্থী হয়ে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছেন চন্দনা বাউরি। আর বিধায়ক হতেই পেয়ে গিয়েছেন কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা রক্ষী। সেটাও আবার এক দুজন নয়, এক সাথে চার চার জন আধাসেনা তাঁর নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন। রয়েছেন একজন রাজ্য পুলিশের কর্মীও। আর তাঁদের নিয়েই বিপাকে পরেছেন বিধায়িকা চন্দনা বাউরি।

নিজের বাড়িতে ওই নিরাপত্তা রক্ষীদের রাত্রিবাস করানোর মত ঘর নেই। তাই নির্ভর করতে হচ্ছে প্রতিবেশীর উপড়ে। প্রতিবেশী একজনের বাড়িতে অনেক বলে কয়ে একটি ঘরের ব্যবস্থা হয়েছে ঠিকই, কিন্তু সে ঘরে আবার জানালা দরজা নেই। তাই নির্বাচনের আগে নিজেদের ঘরে লাগানোর জন্য কিনে রাখা দুটি জানালা ও একটি দরজা প্রতিবেশীর ওই ঘরে লাগিয়ে দিয়েছেন চন্দনা দেবীর রাজমিস্ত্রি স্বামী। আপাতত সেখানেই থাকছেন ওই নিরাপত্তা কর্মীরা।

সমস্যা শুধু থাকার জায়গা নিয়ে নয়, ওই নিরাপত্তা রক্ষীদের তিন বেলা খাওয়ানোর ব্যবস্থা করতেও কার্যত কালঘাম ছুটছে বিধায়িকার। কখনও মুড়ি আবার কখনও আলু সেদ্ধ ভাত। সেটাও রান্না করতে খোদ বিধায়িকাকেই হাত লাগাতে হচ্ছে।কখনও কখনও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হচ্ছে শাশুড়িমাকেও।

সমস্যা তৈরি হয়েছে বিধায়ক হওয়ার পর দলীয় ভাবে পাওয়া একটি চার চাকার গাড়ি নিয়েও। তাই গাড়ি টি ফিরিয়ে নেওয়ার আবেদন জানিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন বিধায়িকা নিজেই। তিনি বলেন, “জওয়ানদের রাখার মতো ঘর আমাদের নেই। পাশেই একজনের বাড়িতে তাদের রেখেছি। সেখানে আবার জানালা, দরজা ছিল না। ভোটের আগে বাড়িতে লাগাব বলে দুটো জানালা আর একটা দরজা কেনা ছিল। সেগুলোই স্বামী ওই বাড়িতে লাগিয়ে দিয়েছে।’

২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচন জিততে মরিয়া হয়ে উঠেছিল বিজেপি নেতৃত্ব। একদিকে যেমন রাজ্যের ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়াদের প্রার্থী করেছেন, তেমনি প্রার্থী হয়েছেন অভিনেতা অভিনেত্রীরাও। আবার চন্দনা বাউরিদের মত একেবারে সাধারণ পরিবার থেকে উঠে আসাদেরও কোথাও কোথাও প্রার্থী করা হয়েছে। রাজ্যের ক্ষমতায় না আসতে পারলেও চন্দনা বাউরিদের মত অনেকেই জয়ী হয়েছেন। প্রতিশ্রুতি মত বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে পেয়েছেন নিরাপত্তা রক্ষীও। কিন্তু এই নিরাপত্তা রক্ষীদের নিয়ে যে এমন সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে, সেটা হয়ত অনেকেই ভেবে ওঠেন নি।