দলের হালহকিকত জানতে আজ বৈঠকে বসছে তৃণমূলের রাজ্যে নেতৃত্ব

270

কলকাতা, ১৫ অক্টোবরঃ পুরভোটের আগেই দলীয় সমীক্ষায় নামছে তৃণমূল। শুরু হচ্ছে ‘দিদিকে বলো’র পরবর্তী ধাপ। পুজোর মরসুমে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে কিছুটা বন্ধই ছিল। তবে পুজো মিটতেই দলের হালহকিকত জানতে আজ বৈঠকে বসছে তৃণমূল নেতৃত্ব। রাজ্যের শাসকদলের প্রতিটি জেলার

সভাপতিদের পাশাপাশি ব্লক ও টাউন সভাপতিদের নিয়ে আজ মঙ্গলবার বৈঠকে বসতে চলেছেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ওই বৈঠকে থাকবেন দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি ও যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে খোদ তৃণমূল নেত্রী থাকবেন কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। সূত্রের খবর, বেলা আড়াইটা নাগাদ ওই বৈঠকে থাকতে পারেনে ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরও।

তৃণমূল সূত্রে খবর, ওয়ার্ড ভিত্তিক সার্ভে করা হবে কর্পোরেশন এলাকায়। আগামী বছর রাজ্যের প্রায় ১০৭টি পুরসভায় নির্বাচন হওয়ার কথা। তার আগে দলের সংগঠন কোন জায়গায় দাঁড়িয়ে, মানুষের মধ্যে জনভিত্তি কতটা মজবুত,পাশাপাশি বর্তমান কাউন্সিলারদের এলাকাভিত্তিক ভাবমূর্তি কেমন, এসব কিছু মেপে দেখতেই  সমীক্ষায় নামতে চলেছে তৃণমূল। খুব স্বাভাবিকভাবেই সমীক্ষার সেই কাজ করবে পিকের টিম।

আগামী ১৫ অক্টোবর তৃণমূল ভবনে বিশেষ বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেই বৈঠকে দলের সব ব্লক ও ওয়ার্ড সভাপতিদের ডাকা হয়েছে। বৈঠকে একইসঙ্গে উপস্থিত থাকবেন জেলা সভাপতিরাও।  বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী, মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়, যুব সভাপতি তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অবশ্যই তৃণমূলের রণনীতি গুরু প্রশান্ত কিশোরের। বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

সূত্রের খবর, পুজোর মধ্যেই তৃণমূলের শীর্ষ মহলের তরফে সাংগঠনিক ক্ষেত্রে বেশকিছু নতুন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। প্রতি রাস্তা পিছু লোকজনের নাম-ঠিকানা চেয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব। শহরের ক্ষেত্রে প্রতি ওয়ার্ড এবং গ্রামীণ এলাকার প্রতি ব্লকের বিভিন্ন রাস্তা পিছু ৫ জন করে স্থানীয়ের নাম জমা করতে বলা হয়েছে। প্রতি ওয়ার্ড বা ব্লক থেকে আপাতত সর্বাধিক ২০ জনের নাম-তালিকা দিতে হবে। পরের ধাপে আরও নাম চাওয়া হতে পারে।