মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ণের প্রয়াণ দিবস পালিত কোচবিহারে

38

কোচবিহার, ১৮ সেপ্টেম্বরঃ আধুনিক কোচবিহারের রূপকার মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ণ ভুপ বাহাদুরের ১০৯ তম প্রয়াণ দিবস পালিত হল কোচবিহারে। বুধবার কোচবিহার দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ডের পক্ষ থেকে তার প্রয়ান দিবস পালন করা হয়। এদিন কোচবিহার সাগরদিঘী উত্তরপারে আদালতের সামনে মহারাজার মূর্তিতে মাল্যদান করা হয়। এরপর কেশব আশ্রমে মহারাজার সমাধিস্থলে সর্বধর্ম পাঠ ও একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।এই দিনের প্রয়াণ দিবসের এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন কোচবিহারের সদর মহকুমাশাসক সঞ্জয় পাল, প্রাক্তন সাংসদ প্রসেনজিৎ বর্মন, ইতিহাস গবেষক নৃপেন পাল, কনসর্টিয়াম অফ কোচবিহার রয়েল ফ্যামিলির সম্পাদক কুমার সুপ্রিয় নারায়ণ, দেবব্রত চাকী প্রমুখ।

রাজ ঐতিহ্যের কোচবিহারে নৃপেন্দ্র নারায়ন এক উজ্জ্বল নাম। তার সময় কালেই শিক্ষা দীক্ষা ধর্মীয় আচরণ ও উন্নয়নের এক উচ্চ স্তরে পৌঁছেছিল কোচবিহার। নির্মাণ কল্পেও এক উল্লেখ্যযোগ্য ভূমিকা নিয়েছিলেন নৃপেন্দ্র নারায়ন, পাশাপাশি তিনি ক্রীড়া ক্ষেত্রেও বিশেষ ভূমিকা নিয়েছিলেন।

মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ন

নৃপেন্দ্র নারায়ণ যখন দশ মাস বয়স ছিল তখন তার পিতা নরেন্দ্র নারায়ণ ১৮৬৩ সালে মারা যান। তিনি একই বছরেই রাজা হিসেবে রাজতন্ত্র পালন করেছিলেন। যেহেতু তিনি শিশু ছিলেন তাই প্রশাসন ব্রিটিশ গভর্নর জেনারেল নিযুক্ত করে কমিশনারের কাছে হস্তান্তর করেন। ১৮৭৮ সালে তিনি কলকাতার কেশবচন্দ্র সেনের কন্যা সুনিতী দেবীকে বিয়ে করেন। বিয়ের অবিলম্ব পর তিনি উচ্চশিক্ষার জন্য ইংল্যান্ডে চলে যান। ১৯১১ সালের আজকের দিনে তিনি প্রয়াত হন। যথাযোগ্য মর্যাদায় ফুল মালা শ্রদ্ধায় তাকে এদিন স্মরণ করেন কোচবিহারের মানুষ।