তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র হলেন মাথাভাঙার নরেন

506

কাজল রায়, মাথাভাঙাঃ ২১ এর নির্বাচনকে সামনে রেখে দলকে সাজিয়ে গুছিয়ে নিচ্ছে তৃনমূল সুপ্রিম মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়। আর সেই লক্ষ্য রাজ্যের বেশিরভাগ জেলার দলের সভাপতিকে পরিবর্তন করা হয়েছে, তাতে বাদ পড়েনি কোচবিহার জেলাও। এই জেলার সভাপতি হন বিদায়ী সাংসদ পার্থ প্রতিম রায়। তার পরে তৃণমূল কংগ্রেস সর্বভারতীয় মুখপাত্র হিসাবে ১২ জনের নাম ঘোষণা করেছে তৃণমূল। রাজ্যের মুখপাত্রের তালিকায় রয়েছে ২২ জনের নাম। পরবর্তী কালে কোচবিহার জেলা তৃনমূল ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি নরেন্দ্র নাথ দত্তকে তৃনমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে দলীয় সুত্রে। এই নিয়ে রাজ্যের মুখপাত্র হল ২৩ জন।

এই খবর পাওয়ার পর নরেন্দ্র সাংবাদিকদের বলেন, আমি স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি দলের মুখপাত্র হিসাবে আমাকে বেছে নেওয়া হবে। সকলের আশীর্বাদ নিয়ে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব সামলানো কাজ চালিয়ে যাবো। ইতিমধ্যে সমস্ত বিধায়কদের সাথে আলোচনা করেছি ফোনে কথা হয়েছে সকলের আশীর্বাদ নিয়েছি। ২১ সালে ৯ টি বিধানসভাই যেন আমাদের বিধায়করা জিতবেন তার জন্য দলের হয়ে রাতদিন পরিশ্রম করব এবং দলের গাইডলাইন মেনে ভবিষ্যতেও করে যাব বলে জানান নরেন বাবু।

তিনি আরও বলেন, গতকাল থেকে প্রচুর ফোন এসেছে। সকলের সাথে কথা বলছি। যদিও বয়স কম আরও কিছু স্টাডি করে দলকে আরও অগ্রগতির দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য যা যা করার তা করার চেষ্টা করব বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে গেরুয়া শিবিরের দাপটে উত্তরবঙ্গ জুড়ে ভরাডুবি হয়েছে তৃণমূলের। তার কারন হিসেবে বারবার উঠে এসেছে তৃনমূলের গোষ্ঠী কোন্দল। আর সেই গোষ্ঠী কোন্দল মেটাতে ভোট গুরু প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শে  উত্তর বঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলা ও কোচবিহারের জেলা সভাপতিকে সরিয়ে দেন। পরে কোচবিহারের সভাপতি করা হয়েছে পার্থ প্রতিম রায়কে। তিনি ছিলেন দলের জেলা কার্যকরী সভাপতি। সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে বিনয়কৃষ্ণ বর্মনকে চেয়ারম্যান করা হল। কো-অর্ডিনেটর হয়েছেন উদয়ন গুহ ,অর্ঘ্যরায় প্রধান।

তার কয়েকদিন পরে তৃণমূল কংগ্রেস সর্বভারতীয় মুখপাত্র হিসাবে ১২ জনের নাম ঘোষণা করেছে তৃণমূল। রাজ্যের মুখপাত্রের তালিকায় রয়েছে ২২ জনের নাম। গতকাল কোচবিহার জেলার মুখপাত্র হিসেবে নিযুক্ত করা হয় তৃনমূল ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি নরেন্দ্রনাথ দত্তকে।