রেশন কার্ড নিয়ে নতুন ঘোষণা, ভর্তুকিহীন ডিজিটাল রেশন কার্ড দেবে সরকার, কখন, কোথায়, কিভাবে জানুন

1083

ওয়েব ডেস্ক, ২২ অক্টোবরঃ এই প্রথমবার দারিদ্রসীমার উপরের পরিবারদের জন্য সস্তার চাল, গম, বরাদ্দ নেই। কাজেই চিরাচরিত যে রেশন কার্ড, তারও প্রয়োজন ফুরিয়েছে। পরিবর্তে স্বচ্ছল ওই পরিবার গুলিকে দেওয়া হবে ভর্তুকিহীন ডিজিটাল রেশন কার্ড, যা কি না সরকারি পরিচয়পত্রের ভূমিকা নেওয়ার পাশাপাশি গণবণ্টন বহির্ভূত গেরস্তালির জিনিসপত্র কিছুটা ছাড়ে কেনার সুবিধাও দেবে। নিম্ন মধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত এবং উচ্চ মধ্যবিত্তদের জন্য এই রেশন কার্ডের আবেদন পত্র জমা দেওয়ার সময় শুরু হচ্ছে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকেই।

খাদ্য দফতর সূত্রে জানা যায়, আগামী ৫ নভেম্বর থেকে ভর্তুকিহীন ডিজিটাল রেশন কার্ডের জন্য আবেদনপত্র জমা নেওয়া শুরু হবে। এর জন্য খাদ্য দফতরের নিয়ম মেনে ১০ নম্বর ফরম পূরণ করতে হবে। সেটি রেশন দোকান ও খাদ্য দফতরের অফিসে পাওয়া যাবে। এই ফর্ম সাধারণ মানুষকে বিলি করার জন্য রাজ্য জুড়ে বিশেষ শিবিরও খোলা হবে‌। জানা গিয়েছে, বিডিও অফিস, পুরসভার অফিসেও আবেদনপত্র জমা দেওয়া যাবে।

অনলাইনেও আবেদনপত্র জমা দেওয়া যাবে বলে জানিয়েছে খাদ্য দফতর। দফতরের পক্ষে জানানো হয়েছে, www.wbpds.gov.in ওয়েবসাইটে গিয়ে ১০ নম্বর ফর্ম ডাউনলোড করতে হবে। ফর্ম পূরণ করে জমা দেওয়া পর্যন্ত গোটাটাই অনলাইনে অর্থাৎ মোবাইলে বা কম্পিউটারে করা যবে। অনলাইনে আবেদনের সময়ে পরিচয় পত্র হিসেবে আধার কার্ডের ছবি আপলোড করতে হবে। আবেদন করার ৩০ দিনের মধ্যে ডিজিটাল রেশন কার্ডের হার্ড কপি চলে আসবে। বাতিল হয়ে যাবে পুরনো রেশন কার্ডটি।

খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, “আবেদনপত্র জমা পড়ার তিরিশ দিনের মধ্যে ডিজিটাল রেশন কার্ড হাতে পেয়ে যাবেন বিত্তশালী মানুষজন। যে সমস্ত বিত্তশালী মানুষদের ২ টাকা কেজি চালের ডিজিটাল রেশন কার্ড আছে, তাঁদের অনুরোধ করা হচ্ছে সে কার্ড ছেড়ে দিয়ে ১০ নম্বর ফর্ম জমা দিতে।”

৫ নভেম্বর থেকে ডিজিটাল রেশন কার্ড সংক্রান্ত দ্বিতীয় পর্যায়ের স্পেশ্যাল ক্যাম্প শুরু হচ্ছে রাজ্যজুড়ে। বিডিও অফিস, পুরসভা, কর্পোরেশনের বোরো অফিসে আবেদনপত্র জমা দেওয়া যাবে। সেখানেও সরাসরি হাজির হয়ে ১০ নম্বর ফর্ম জমা দিতে পারবেন বিত্তশালী মানুষজন। এছাড়াও ওই বিশেষ শিবিরে ডিজিটাল কার্ড সংক্রান্ত যে কোনও নাগরিক তিন থেকে নয় নম্বর পর্যন্ত ফর্ম জমা দিতে পারবেন। এর আগে ৯-২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথম পর্যায়ের স্পেশ্যাল ক্যাম্পে ৯২ লক্ষ আবেদনপত্র জমা পড়েছিল। এবার ১০ নম্বরের জন্য কত ফর্ম জমা পড়ে, সেটাই দেখার।