নিকেশ ইয়েমেনের আল-কায়দা প্রধান কাসিম

98

ওয়েব ডেস্ক, ৭ ফেব্রুয়ারিঃ বাগদাদির পর এবার মার্কিন সেনা খতম করল ইয়েমেন আল কায়দা প্রধান কাসিম আল রিমিকে। যিনি আবার পরিচিত ছিলেন জিহাদের বাদশা হিসাবে।ইয়েমেনের আল কায়দা প্রধানকে নিকেশ করার কথা ট্যুইট করে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আরব সাগরের পার্শ্ববর্তী অঞ্চলগুলিতে আল কায়দার মাথা ছিল এই কাসিম আল-রিমি। গত বছর ডিসেম্বরে ফ্লরিডার পেনাস্কোলা মার্কিন নৌসেনা ঘাঁটিতে অতর্কিতে হামলা চালায় আল কায়দা। প্রাণ হারিয়েছিলেন তিন মার্কিন নৌসেনা কর্মীর। এই নাশকতার মূল মাথা ছিল কাসিম আল-রিমি।

গতকাল হোয়াইট হাউসের তরফ থেকে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, ইয়েমেনে আল কায়দা প্রধান নিকেশ অভিযান সফল হয়েছে। ঠিক কবে এবং কীভাবে কাসিমকে হত্যা করা হয়েছে সেই তথ্য এখনও সামনে আনেনি হোয়াইট হাউস।অবশ্য ৩১ জানুয়ারি থেকেই কাসিম আল-রিমির হত্যার কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল।তবে গতকাল প্রথমবার সরকারি ভাবে এই খবরের সত্যতা স্বীকার করে আমেরিকা।এই বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘আমেরিকার উপর আঘাত হানলে আমরা তার বদলা নেবই। নিকেশ করা হবে সেই সন্ত্রাসবাদীদের।’

২০০৬ সালে ইয়েমেনের জেল থেকে মুক্তি পেয়েই জিহাদি কার্যকলাপ শুরু করে দেয় কাসিম আল-রিমি। ২০০৯ সালে আল কায়দার আরব উপদ্বীপ শাখার কার্যক্রম শুরু হয়।সৌদি আরব এবং ইয়েমেন থেকে মার্কিন সমর্থিত সরকার এবং পশ্চিমা প্রভাব মুক্ত করাই ছিলে এই শাখার লক্ষ্য। মোস্ট ওয়ান্টেড আল কায়দা প্রধানকে খতম করতে ২০১৭ সালেই আরাবিয়ান পেনিনসুলায় ১৩১ বার এয়ার স্ট্রাইক চালায় আমেরিকা। ২০১৮ সালে ৩৬ বার। প্রতিবারই বেঁচে পালিয়ে যায় কাসিম।