আগামিকাল ১৬,৫০০ পদে প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগের নোটিশ জারি,১০ জানুয়ারি থেকে ইন্টারভিউ,ঘোষণা মমতার

761

ওয়েব ডেস্ক, ২২ ডিসেম্বরঃ রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের মুখে রাজ্যে শিক্ষাক্ষেত্রে দুটি বড় ঘোষণা এদিন করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এক ১৬৫০০ পদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য আগামিকাল টেট পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হতে চলেছে। আর দুই, ১২ ক্লাসের ছাত্রছাত্রীদের ট্যাবের পরিবর্তে প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে ১০ হাজার টাকা করে দিয়ে দেওয়া হবে।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘আগামীকাল অর্থাৎ বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জন্য রিক্রুটমেন্ট নোটিশ জারি করবে প্রাইমারি এডুকেশন বোর্ড। ২০২১–এর ১০ থেকে ১৭ জানুয়ারি ইন্টারভিউ হবে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অ্যাপয়নমেন্ট প্যানেল তৈরা হয়ে যাবে।’ এর পাশাপাশি টেট পরীক্ষার ব্যাপারেও এদিন বলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানান, ৩১ জানুয়ারি অফলাইনে তৃতীয় টেট পরীক্ষা হবে। পরীক্ষায় বসবে আড়াই লক্ষ আবেদনকারী।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী সাংবাদিক বৈঠকের শুরুতেই জানান,‘স্কুল শিক্ষকদের ক্ষেত্রে নিজ জেলায় পোস্টিং সম্পর্কিত বিষয়টি বেশ ভাল ভাবেই নজর রাখছে রাজ্য সরকার। তাই চেষ্টা করা হচ্ছে প্রাইমারি স্কুল শিক্ষক হোক কী সেকেন্ডারি স্কুল শিক্ষক সকলের ক্ষেত্রেই যতটা সম্ভব নিজ জেলায় বা জেলার কাছাকাছি বদলির ব্যবস্থা করতে। প্রাইমারি স্তরে এখনও পর্যন্ত ১০১৬৩ আবেদন জমা পড়েছিল। এদের মধ্যে ৬৪৬৬ আবেদন গৃহীত হয়েছে ও বাড়ির কাছেই স্কুলে তঁদের নিয়োগ করা হচ্ছে। সেকেন্ডারি লেবেলে এই আবেদন জমা পড়েছিল ৫৫০২টি। আমরা সব দিক খতিয়ে দেখে ৩৮৫২ শিক্ষক বা শিক্ষিকাকে বাড়ির কাছাকাছি স্কুলে নিয়োগ করেছি। মিউচ্যুয়াল ট্রান্সফার হওয়ার ক্ষেত্রে আবেদন জমা পড়েছিল ৪৫৯৩টি। এর মধ্যে ৪৪৯০ কেসে আমরা সবুজ সঙ্কেত দিয়ে দিয়েছি।’

একই সঙ্গে এদিন মুখ্যমন্ত্রী জানান রাজ্যের উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার দ্বাদশ শ্রেনীর পড়ুয়াদের ট্যাব দেওয়ার যে কথা বলা হয়েছিল তা কিছুটা পরিবর্তন করতে হচ্ছে। ১২ ক্লাসের ছাত্রছাত্রীদের ১০ হাজার টাকা করে তাঁদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে দিয়ে দেওয়া হবে। সেই টাকা দিয়ে তাঁরা ট্যাব বা স্মার্ট ফোন কিনে নিতে পারে। এই টাকা আগামী ৩ সপ্তাহের মধ্যে দিয়ে দেওয়া হবে। এত ট্যাব একসঙ্গে দেওয়া যাচ্ছে না। তাই এই সিদ্ধান্ত নিতে হল। দ্বাদশ শ্রেনীর সব পড়ুয়াকে ট্যাব দিতে গেলে প্রায় ১০ লক্ষ ট্যাব প্রয়োজন হত। কিন্তু এখন কোনও সংস্থাই এত বড় সংখ্যায় ট্যাব দিতে পারছে না।

এদিকে রাজ্যে বিভিন্ন জেলায় ১৫ বছর ধরে কর্মরত শিক্ষক ও পুলিশকর্মীরা অনেকদিন ধরেই নিজের জেলা বা বাড়ির কাছে বদলির আবেদন জানিয়ে এসেছেন সরকারের কাছে। এদিন তা নিয়েই সুখবর দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি এদিন বলেন, ‘১৫ বছর ধরে কর্মরত হোমগার্ড, কনস্টেবল, এসআইয়ের মতো পুলিশকর্মীরা নিজের জেলায় ফিরে যাওয়ার আবেদন জানিয়েছেন। যতটা সম্ভব আমরা করে দেব বলেছি।’ মুখ্যমন্ত্রী এদিন জানান, এ পর্যন্ত পুলিশকর্মীদের থেকে প্রায় ৫০ হাজার আবেদন পাওয়া গিয়েছে। তার মধ্যে ৩৫ হাজার পুলিশকর্মীকে তাঁদের পছন্দের জেলায় বদলি করা হয়েছে।