এনআরসি, ক্যা ও এনপিআর নিয়ে অভিনব প্রতিবাদ নব দম্পতির, বিয়ের মঞ্চ হয়ে উঠল প্রতিবাদের মঞ্চ

67

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: এনআরসি, সিএএ-র অভিনব প্রতিবাদ শামিল হলেন এক নব দম্পতি। এমনকি কাগজ দেখাবো না, এমনি পোস্ট কার্ড বানিয়ে প্রতিটি খাবার টেবিলে রাখা হয়েছে ওই বিয়ের। এভাবেই নিজের বিয়েতে এনআরসি সিএএ-র বিরোধিতায় সরব হলেন তৃণমূল কাউন্সিলর ইলিয়াস সর্দার হোসনে। আর যা নিয়ে ইতি মধ্যেই রাজ্য-দেশ জুড়ে বিরোধিতায় তোলপাড় হচ্ছে। সেই সময় তাদের মনে হয়েছে যে বিয়ের মঞ্চ থেকে নিয়ন্ত্রিত আত্মীয়-স্বজন সচেতন করা।

বিয়ে বাড়ি সুত্রে জানা গেছে,এনআরসি ও ক্যা এবং এনপিআর বিরোধিতায় মূল মঞ্চের পেছনে বড় বড় অক্ষরে লেখা আছে কাগজ দেখাবো না। এমনকি মেনু কার্ডে বড় বড় অক্ষরে লেখা এনআরসি,সিএএ-র বিরোধিতা কেন ? এই মঞ্চ থেকে বাছলেন তাই নিয়ে আত্মীয়-স্বজন থেকে শুরু করে শুধু স্থানীয় বাসিন্দাদের মনে কৌতুহল তাহলে কি প্রচারে আলোর আসার চেষ্টা করছে নবদম্পতির। তা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। কেউ কানে ফিসফিস কেউ চোখে চোখ রেখে ইশারায় কথা বলা, সব মিলিয়ে এই বিয়ে বাড়ি হয়ে উঠল আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু।

পৌর সভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউনসিলার ইলিয়াস সর্দার বরাবরই রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট থেকে উঠে আসা বয়সটা সুই-সুই ৪০বছর। তার বিয়ে হচ্ছে মুর্শিদাবাদ জেলার তৃণমূলের জেলা পরিষদের সদস্য সরকারি আইনজীবী হোসনে আরা বুলবুল এর সঙ্গে। বিয়ের সম্পূর্ণ হয়েছে শনিবার। তার বৌভাত সবমিলিয়ে নবদম্পতির রা জানালেন জীবনের প্রথম পথ চলা দুজনের দাম্পত্য জীবনে। তাই আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ আজকে শুধু বিয়ের মঞ্চ থেকে নয়, এই লাগাতার প্রতিবাদ মানুষকে সচেতন করার বার্তা নিয়ে যাব। আমাদের গর্ভের সন্তান যদি আসে তাকেও এই পথে অনুসরণ করাব। সবমিলিয়ে আজকের এই বিয়ের মঞ্চ হয়ে উঠল প্রতিবাদের মঞ্চ।

এই অভিনব প্রতিবাদ বসিরহাটের মানুষ একদিকে যেমন বাহবা দিচ্ছে। তেমনি প্রচারে আলো আসার অভিনব উপায়কে ফোটে মিচকি মিচকি মুচকি হাসি দিচ্ছে। আর মাত্র কয়েক মাস পরে পৌরসভার ভোট তাহলে কি সেই ভোটকে জেতার হাতিয়ার করে এই ইস্যুকে সামনে রেখে প্রচার করতে শুরু করেছে। রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন। প্রথম প্রচার শুরু হয় গত তিন মাস আগের ফেসবুকের মাধ্যমে, তারপরে বিয়ের মঞ্চ ও মেনু কার্ড আগামী দিনে মানুষকে সচেতন করাই মূল উদ্দেশ্য।