এনআরসি, দেশের অর্থনীতির বেহাল দশা এবং জেলা জুড়ে বিজেপির সন্ত্রাসের প্রতিবাদে কোচবিহারে পথে নামল তৃনমূল

26

কোচবিহার, ৮ সেপ্টেম্বরঃ এবার এনআরসি ইস্যুকে সামনে রেখে অসম বাংলা সীমান্তে কোচবিহার জেলায় নিজেদের রাজনৈতিক জমি ফের শক্ত করতে চাইছে তৃনমূল। এই লক্ষে রবিবার কোচবিহার এক নং ব্লকের বিরাট অংশ জুড়ে জনমত সংগঠিত করতে মিছিল করে তৃনমূল। একই সাথে লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর গোটা কোচবিহার জেলা জুড়ে অশান্তির বাতাবরণ তৈরি করেছে বিজেপি। এই অভিযোগ এনে পানিশালা অঞ্চল তৃনমূল কংগ্রেসের উদ্যোগে এই কর্মসূচী করা হয়। এদিন কোচবিহার ১ নং পঞ্চায়েত সমিতির কার্যালয়ের সামনে থেকে মিছিল করে কলাকাটা পর্যন্ত গিয়ে আবার সেখান থেকে ফিরে এসে ৪ নং বাজারে ওই মিছিল শেষ হয়।

এদিনের ওই মিছিলে অংশগ্রহন করেন তৃনমূল যুব কংগ্রেসের নেতা আশরাফুল আলি, মহিলা তৃনমূল কংগ্রেসের জেলা সভানেত্রী শুচিস্মিতা দেব শর্মা সহ পানিশালা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বিভিন্ন নেতৃত্বরা।

এদিন মিছিল শেষে তৃনমূল যুব নেতা আশরাফুল আলি বলেন, অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) থেকে সাধারণ নাগরিকদের নাম বাদ যাওয়া এবং দেশের অর্থনীতির ক্রমবর্ধমান বেহাল দশা এবং কোচবিহার জেলায় বিজেপির ধারাবাহিক সন্ত্রাসের প্রতিবাদে পথে নেমে আন্দোলন করবে তৃণমূল কংগ্রেস। জ্বলন্ত এই দুই ইস্যুকে সামনে রেখে মমতা বন্ধোপাধ্যায়ের নির্দেশে আমরা পথে নেমে আন্দোলন করছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা এলাকায় শান্তি চাই। কিন্তু এলাকায় অশান্ত করার চেষ্টা করছে বিজেপি। কোথাও রাতের অন্ধকারে আবার কোথাও বা প্রকাশ্যে দিবালোকে তৃনমুল কর্মীদের মারধোর করছে বিজেপি। শুধু তাই নয় জেলা জুড়ে বিজেপির যে লাগামহীন সন্ত্রাস চালাচ্ছে তারই প্রতিবাদে আজ আমরা পথে নেমেছি।

প্রসঙ্গত, অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি)থেকে সাধারণ নাগরিকদের নাম বাদ যাওয়া এবং দেশের অর্থনীতির ক্রমবর্ধমান বেহাল দশার প্রতিবাদে পথে নেমে আন্দোলন করবে তৃণমূল কংগ্রেস। শুধু দলের বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীরাই নন, জ্বলন্ত এই দুই ইস্যুকে সামনে রেখে আন্দোলনের নেতৃত্ব দিতে পথে নামতে চলেছেন স্বয়ং তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সোমবার কালীঘাটে দলের সংসদ সদস্য এবং জেলা সভাপতিদের সঙ্গে সাংগঠনিক বৈঠকে কেন্দ্র বিরোধী ওই আন্দোলনের রূপরেখা উপস্থাপন করেন মমতা। এনআরসি এবং অর্থনীতির বিপর্যয়কে সামনে রেখে ৭ ও ৮ সেপ্টেম্বর জেলায় জেলায় ব্লকস্তর পর্যন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে জোড়াফুল শিবির। একই ইস্যুতে কেন্দ্রীয়ভাবে ১২ সেপ্টেম্বর কলকাতায় হবে মহামিছিল। উত্তর শহরতলির দমদম চিড়িয়ামোড় থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত মিছিলে পা মেলাতে পারেন তৃণমূল সুপ্রিমো নিজেও।