উত্তরপ্রদেশের হাথরাস সহ দলিত শ্রেণীর ওপর শোষণের প্রতিবাদের ঝড় আছড়ে পড়লো নদীয়ার কল্যাণীতে

75

মলয় দে, নদিয়াঃ সম্প্রতি ঘটে যাওয়া দলিত তরুণীর মৃত্যু এবং দলিত শ্রেণীর ওপর লাগাতার শোষণের বিরুদ্ধে সারা বাংলায় যে ঝড় উঠেছে, গতকাল তা আছড়ে পড়লো নদীয়ার কল্যাণীতে। সাতটি অঞ্চল নিয়ে গঠিত কল্যাণী ব্লক এবং কল্যাণী শহরের সকল জনপ্রতিনিধি, তৃণমূল এবং বিভিন্ন দলীয় গণসংগঠনের সক্রিয় সদস্য সমর্থক এবং নেতৃত্বর বিক্ষোভে আলাইপুর মনোরম স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে মদনপুর ইন্দিরা মোড় পর্যন্ত তিল ধারণের জায়গা ছিল না।

কর্মী-সমর্থকদের ফ্লেক্স ব্যানার ফেস্টুন এবং স্লোগানে রাজপথ হয়ে উঠেছিলো বিক্ষোভ মুখরিত। এই বিক্ষোভ মিছিলে শামিল হয়েছিলেন স্থানীয় বিধায়ক ড: রমেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, রানাঘাট সাংগঠনিক তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি ড: প্রসেনজিৎ মন্ডল, জেলা পরিষদের সদস্যা টিনা ভৌমিক, কল্যাণী শহর তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অরূপ মুখার্জি, কল্যাণী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শ্রীমতি সুনন্দা দুর্লভ পান্ডা, ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি পঙ্কজ কুমার সিং, তৃণমূল ছাত্র পরিষদ সভাপতি মানব চক্রবর্তী, সংখ্যালঘু সেলের সভাপতি ইসরাফিল হক, এসসি, এসটি, ওবিসি সভাপতি বিষ্ণু বাড়ূই সহ স্থানীয় এবং জেলা নেতৃত্ব।

বিক্ষোভ মিছিল শেষ হয় ইন্দিরা মোড়ে, সেখানে একটি বিক্ষোভ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তব্য রাখেন নেতৃত্ব। প্রায় প্রত্যেকের মুখ থেকে উঠে আসে একরাশ ধিক্কার! উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন তারা। কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকারের রেল, কয়লাখনি, বিমান বেসরকারিকরণের মত তুঘলকী সিদ্ধান্তে সমালোচনা করে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নীতি আদর্শ এবং সাধারণ মানুষের জন্য জনমুখী বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের কথা মনে করিয়ে দেয় না আর একবার। গতকালকের এ ধরনের মহামিছিলে কর্মীরা আগামী একুশে বিধানসভায় জন্য যে উদ্দীপনা লাভ করেছে! তা বলাই বাহুল্য।