জেএনইউ কাণ্ডে উপাচার্যকে বরখাস্তের দাবি জানালেন প্রবীণ বিজেপি নেতা মুরলি মনোহর

80

ওয়েব ডেস্ক, ১০ জানুয়ারিঃ জেএনইউ কাণ্ডে এবার আরও অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবির৷পড়ুয়াদের সমর্থন জানিয়ে বর্ধিত ফি ইস্যুতে উপাচার্য এম জগদীশ কুমারকে বরখাস্তের দাবি তুললেন খোদ মুরলী মনোহর যোশী।জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের আচরণ অত্যন্ত ‘দুঃখজনক’ অ্যাখ্যা দিয়ে, কেন্দ্রের উদ্দেশে বর্ষীয়ান এই নেতার পরামর্শ, জগদীশকে সরিয়ে দিন।

বিজেপি নেতা জোশীর দাবি, মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক দু’বার উপাচার্য জগদীশ কুমারকে বিতর্ক মেটাতে এবং সমস্যা সমাধানের জন্য ছাত্র-শিক্ষকদের সঙ্গে পৃথকভাবে আলোচনা করতে বলেছিলেন। কিন্তু তিনি তা করেননি। শুধু তাই নয়, উপরন্তু উপাচার্য নিজের একগুঁয়েমী মনোভাব বজায় রেখেছেন বলেও অভিযোগ করেন জোশী। তিনি বলেন, ‘এখন জগদীশ কুমারকে জেএনইউ উপাচার্য পদ থেকে অপসারণ করা উচিত।’

বিজেপির প্রবীণ নেতা মুরালি মনোহর জোশী টুইট করে লেখেন, ‘এমন খবর পাওয়া গিয়েছে যে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক দু’বার জেএনইউয়ের উপাচার্যকে বর্ধিত ফি নিয়ে বিরোধের সমাধানের জন্য পদক্ষেপ করতে বলেছিল। উপাচার্যকে বিষয়টি নিয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলার পরামর্শও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অবাক হওয়ার মতো বিষয় যে, সরকারের প্রস্তাব পাওয়ার পরও উপাচার্য নিজের অবস্থানে অনড় রয়েছেন।’ এখানেই শেষ নয়, জোশীর সংযোজন, ‘উপাচার্যের মনোভাব অত্যন্ত নিন্দনীয়। উপাচার্যকে অবিলম্বে পদে অব্যাহতি দেওয়া উচিত।’

গত রবিবার সন্ধ্যায় বহিরাগত মুখোশধারীরা জেএনইউ ক্যাম্পাসে ঢুকে পড়ুয়াদের উপর তাণ্ডব চালানোর পর থেকেই দেশজুড়ে সমালোচনার মুখে পড়েন উপাচার্য জগদীশ কুমার। বহিরাগত গুন্ডাদের ঠেকাতে তিনি কোনও পদক্ষেপ করেননি বলে অভিযোগ। এমনকী পুলিশও ডাকেননি। না আহত ছাত্রছাত্রীদের পাশে গিয়ে দাঁড়িয়েছেন। ফলে, সমাজের সবস্তরেই ধিক্কৃত হন জেএনইউ উপাচার্য। তবে, রাজনৈতিক মহলের দাবি, বিজেপি নেতা মুরলি মনোহরের এই টুইটের পর উপাচার্য জগদীশ কুমারকে অপসারণের জন্য সরকারের উপর চাপ আরও বাড়ল।