স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ ছাত্র অভিভাবকদের

139

মালদা, ১ অক্টোবরঃ  প্রধান শিক্ষককে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে একটি ডেপুটেশন দিতে গেলে বিদ্যালয় চত্বরে অশান্তির পরিবেশ তৈরি হয়। মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে মালদা জেলার হরিশচন্দ্রপুর এর চন্ডিপুর হাই স্কুলে।পরবর্তীতে হরিশচন্দ্রপুর থানার পুলিশ গিয়ে ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনে।

পড়ুয়াদের অভিযোগ,বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিভিন্ন দুর্নীতিতে জর্জরিত হয়ে পড়েছে এই দাবি নিয়ে আজকে প্রধান শিক্ষককে ডেপুটেশন দিতে গেলে প্রধান শিক্ষকের আশ্রিত কিছু বহিরাগত দুষ্কৃতীরা তাদের উপরে হামলা চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে।

যদিও এই ঘটনা পুরোপুরি অস্বীকার করেছে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জুলফিকার আলী।তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে পুরোপুরি মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে এবং বিদ্যালয়র ছাত্রদের সাথে কিছু অভিভাবকেরা এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

আন্দোলন কারীদের অভিযোগ স্কুলের ভর্তি ফিস  সরকার নির্ধারিত টাকার থেকে দ্বিগুণ নেওয়া হয়। মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিকের রেজিস্ট্রেশন ফি দ্বিগুণেরও বেশি নেওয়া হয় পড়ুয়াদের কাছ থেকে এমনকি সময় পেরিয়ে গিয়েছে বলে অজুহাত দিয়ে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য বেশ কিছু ছাত্রের কাছ থেকে দু হাজার টাকা করে আদায় করা হয়েছে বলেও অভিযোগ। সরকারি নানা তহবিল থেকে স্কুলে বই কেনা, খেলাধুলোর সরঞ্জাম কেনার জন্য প্রচুর টাকা দেওয়া হয়। ভর্তির সময় জোনেশনের নামে পড়ুয়াদের কাছ থেকে লক্ষলক্ষ টাকা আদায় করা হয়। কিন্তু তা দিয়ে কোনও উন্নয়ন হয় না বলে অভিযোগ।

এছাড়া স্কুলে মিড ডে মিল নিয়ে ব্যাপক দুর্নীতি চলছে বলে অভিযোগ। খাবারের মান এতটাই খারাপ যে গড়ে দিনে ৫০ থেকে ৬০ জন ছাত্র খাবার খায়। অথচ প্রতিদিন বিল পাঠানো হয় ৪০০ থেকে ৫০০ জনের বলে অভিযোগ। এমনই একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখালেন ছাত্র ও অভিভাবকরা। মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুরের চন্ডীপুর হাই স্কুলে মঙ্গলবার ওই বিক্ষোভের ঘটনাটি ঘটে। ছাত্র-অভিভাবক সংগ্রাম কমিটির নেতৃত্বে ওই বিক্ষোভ-আন্দোলনকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। প্রশাসন তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিক বলেও তারা দাবি করেছেন।