কাশ্মীর থেকে ইন্টারনেট সহ সব নিষেধাজ্ঞা তুলতে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

164

ওয়েব ডেস্ক, ১০ জানুয়ারিঃ কাশ্মীর উপত্যকতায় আরোপিত বিভিন্ন বিধিনিষেধ নিয়ে কড়া অবস্থান নিল সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ।এক সপ্তাহের মধ্যে সব বিধিনিষেধ পুনর্বিবচনা করে তা প্রকাশ করতে বলা হয়েছে।অভূতপূর্ব পরিস্থিতি ছাড়া অনির্দিষ্টকালের জন্য উপত্যাকায় ইন্টারনেট বন্ধ করে রাখা টেলিকম আইনের বিধি লঙ্ঘন ও প্রশাসনের স্বেচ্ছাচারিতার প্রকাশ। অবিলম্বে হাসপাতাল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ইন্টারনেট পরিষেবা চালু করার জন্য এদিন জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

এছাড়াও এদিনের নির্দেশে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করে ১৪৪ ধারা লাগু করা যায় না। এটি কেবল তখনই ব্যবহার করা যেতে পারে যখন হিংসা ও জনগণের সুরক্ষা সংক্রান্ত বিপদ রয়েছে। বেশ কিছু ব্যবসা ও পেশা ইন্টারনেটের উপর নির্ভরশীল। সংবিধানের ১৯ ধারার ১-জি অনুচ্ছেদ দ্বারা এই জাতীয় বাণিজ্য ও পেশা পালনের স্বাধীনতার অধিকার সুরক্ষিত রয়েছে। সম্পূর্ণ বিধিনিষেধ নির্দিষ্ট সময় অন্তর পুনর্বিচনা করতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছে কোর্ট। ফেৎ এই ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করার সময় বিকল্প ভাবারও কথা বলা হয়েছে।

গত ৫ অগস্ট সংবিধানের ৩৭০ ধারা খারিজ করে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেয় কেন্দ্র। একই সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর থেকে লাদাখকে আলাদা করে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয় এবং জম্মু-কাশ্মীরকেও একটি ভিন্ন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। সেই থেকেই নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে একাধিক নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে উপত্যকায়। বন্ধ রয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা। আটক করা হয়েছে জম্মু-কাশ্মীরের তিন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকেও।