প্রতিমা নিরঞ্জনকে কেন্দ্র করে গোলমাল কোচবিহার শহরে, সুভাষপল্লী এলাকায় উত্তেজনা

1204

মুক্তাঙ্কন বর্মণ, ১০ অক্টোবরঃ প্রতিমা নিরঞ্জনকে কেন্দ্র করে দেবী পক্ষের একাদশীর রাতে কোচবিহার শহরের সুভাষপল্লী এলাকায় দুটি পূজা কমিটির মধ্যে তুমুল গোলমাল বাধে। দুই ক্লাবের গোলমালে এখন রাজনৈতিক রং লাগতে শুরু করেছে। এলাকার এস পি ইউনিট ও সুভাষপল্লী স্পোটিং ক্লাবের সদস্যদের মধ্যে এই গোলমাল শুরু হয়। বুধবারের এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় ওই এলাকায়। বুধবার একাদশীর রাতে নিরঞ্জন হয় এস পি ইউনিটের প্রতিমার। আগের রাতে মঙ্গলবার বিসর্জন হয় ঘটনায় সুভাষপল্লী স্পোটিং ক্লাবের প্রতিমার। ঘটনার সূত্রপাত হয় মঙ্গলবার রাতেই। এর জেরেই বুধবার একটি বাড়িতেও হামলার চালানো হয় বলে অভিযোগ উঠে। পরে কোচবিহার কোতোয়ালী থানার পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দশমীর রাতে মদ্যপ অবস্থায় এক যুবক সুভাষপল্লী এলাকায় এক যুবক অশালীন আচরণ করেছিল বলে অভিযোগ। সেইসময় ওই ক্লাবের এক সদস্য প্রতিবাদ করায় ওই যুবক তাকে হুমকি দিয়ে চলে যায়। বুধবার রাতে সেখানকার অন্য একটি ক্লাবের প্রতিমা নিরঞ্জন ছিল। এদিন ওই যুবক মদ্যপ অবস্থায় প্রতিবাদ করা ওই সদস্যের বাড়িতে হামলা চালায়। ওই ক্লাব সদস্য পার্থ বনিকের অভিযোগ, ওই যুবক মদ্যপ অবস্থায় তার দলবল নিয়ে আমার বাড়িতে এসে হামলা চালায়। গেট ভাঙচুর করে এবং বাড়িতে সেই সময় আমি  না থাকার দরুন ওরা ঘরেও ভাঙচুর চালিয়েছে। সেই সময় বাড়ির মহিলারা বাঁধা দিতে গেলে তাঁরা তাঁদের উপরেও চরাও হয়। তিনি আরও বলেন এই ঘটনার সাথে জড়িত আছে ২ নং ওয়ার্ডের প্রভাবশালী কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। ঘটনায় অভিযোগের আঙুল তোলা হয়েছে স্থানীয় প্রাক্তন কাউন্সিলার তথা বর্তমান কাউন্সিলার মিনা তরের পুত্র উজ্জ্বল তরের বিরুদ্ধেও।

এবিষয়ে আক্রান্ত ওই ক্লাব সদস্য পার্থ বনিক বলেন, ওই যুবক দশমীর দিন মদ্যপ অবস্থায় ক্লাবের সামনে স্বজোরে বাইক নিয়ে এসে যাতায়াত করছিল। সেই সময় আমি ওর উপর প্রতিবাদ করায় তাঁরা গতকাল রাতে আমার বাড়িতে এসে হামলা করে। বাড়ির অন্যান্য সদস্যরা ভয় পেয়ে যায়। এই ঘটনায় গোটা পরিবার আতঙ্কে রয়েছি। ঘটনায় বিবরণ দিয়ে  পুলিশের কাছে ৬ জনের নামে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।  

এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে কোচবিহার পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলার তথা স্থানীয় তৃণমূল নেতা উজ্জ্বল তর বলেন, আমার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্যপ্রনিত। আমি পৌরসভার একজন নির্বাচিত প্রতিনিধি। কেউ বা কারা এই ঘটনা ঘটিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা বদনাম রটানোর চেষ্টা করছে। যারা আমার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনছে তাঁরা ভারতীয় জনতা পার্টির কর্মী বলে জানতে পেরেছি। আমরা বিরুদ্ধে তাঁরা রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করছে। এই ঘটনার সাথে আমার কোনও যোগ নেই।