প্রানভিক্ষার আবেদন খারিজ, নির্ভয়া কাণ্ডের মুকেশের মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করল শীর্ষ আদালত

338

ওয়েব ডেস্ক, ২৯ জানুয়ারিঃ নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত মুকেশ সিংয়ের আবেদন বুধবার খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। জানিয়ে দেওয়া হল, সবদিক বিচার করেই প্রাণভিক্ষার আরজি খারিজ করেছিলেন রাষ্ট্রপতি। তাই ১ ফেব্রুয়ারি নির্ধারিত দিনেই ফাঁসি হবে মুকেশের।

মঙ্গলবার তার আইনজীবী অঞ্জনা প্রকাশ দাবি করেন, আবেদন খারিজের সময় একাধিক বিষয় ভেবে দেখা হয়নি। তাড়াহুড়ো করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। সঙ্গে এও অভিযোগ তোলেন যে, তিহার জেলে যৌন হেনস্তার শিকার হয়েছে মুকেশ। এমনকী তাকে মারধরও করা হত।

১ ফেব্রুয়ারি জারি হয়ে গিয়েছে মৃত্যু পরোয়ানা৷ তবু বাঁচার শেষ চেষ্টার কসুর করছে না নির্ভয়া গণধর্ষণ ও খুনেরকাণ্ডে দোষীরা৷ বুধবারই দেশের শীর্ষ আদালতে পিটিশনের শুনানি হয়। শুনানির শেষে প্রাণভিক্ষারআর্জি খারিজ করে দেয় আদালত। নির্ভয়াকাণ্ডে মুকেশের মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করে দেয় আদালত। আদালতের নির্দেশ, রাষ্ট্রপতি ফাঁসি নিয়ে বিতর্কের কোনও জায়গা নেই। সমস্ত দস্তাবেজ যাচাই করেই রাষ্ট্রপতি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। তাড়াহুড়ো করে তিনি কোনও সিদ্ধান্ত নেন নি।

এদিকে, মুকেশের সামনে সব আইনি রাস্তা বন্ধ হলেও অন্যান্য আসামীর ক্ষেত্রে তা হয়নি। দুই আসামী এখনও প্রাণভিক্ষার আবেদনই করেনি। একজনের আবেদন এখনও বিচার করাই হয়নি। ফলে ১ ফেব্রুয়ারি ৪ আসামীর ফাঁসি হবে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে।

জানা গেছে, আদালতের এই রায়ে খুশি নির্ভয়ার পরিবার। বারবার এই মামলা দীর্ঘায়িত হওয়ার জন্য অনেক সমালোচনা শুরু হয়েছে। গত মাসেই ফাঁসির সাজা মুকুবের জন্য হিন্দু দেবদেবী ও দিল্লির দূষণের কারণ দেখিয়ে আবেদন করেছিল অক্ষয়। সেই আবেদন খারিজ করে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। ফের একবার আবেদন করে। নির্ভয়া গণধর্ষণ কাণ্ডে চার দোষী অক্ষয়, মুকেশ, বিনয় শর্মা ও পবন গুপ্তর ফাঁসি হওয়ার কথা ১ তারিখ। এর আগে ২২ জানুয়ারি ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু দোষীরা একাধিক কারণে আদালতের দ্বারস্থ হওয়ায় আইনি জটিলতা দেখা দেয়। যার জেরে পিছিয়ে যায় ফাঁসির দিনক্ষণ।