মালদায় যুবকের রক্তাক্ত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য

86

মালদা, ১৩ জানুয়ারিঃ এক ওষুধের দোকানের কর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যুতে শোকের ছায়া এলাকায়। ওই যুবকের রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয় সোমবার সাত সকালে। এই ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার কালিয়াচক থানার জালালপুর অঞ্চলের বড়নগর ডাঙ্গা এলাকায়। মালদার কালিয়াচক থানার পুলিশ ওই দেহ উদ্ধার করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই যুবকের নাম সায়িম মোমিন(২১)। সে বড়নগর এলাকার বাসিন্দা।পেশায় সে একটি ওষুধের দোকানে কর্মী। কিন্তু এধরনের সাধারণ একজন সাধারণ মানুষের রক্তাক্ত মৃত দেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে ধন্দে পড়েছে পুলিশ। 

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, রবিবার রাতে সায়েমের বাড়িতে পিকনিকের একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়। কিন্তু সেখানে প্রতিবেশী এক আত্মীয়র পরিবারের সদস্যরা আসতে না পারায় তাঁদের বাড়িতে ওই রাতেই খাওয়ার পৌঁছে দেবার কথা বলে বেরিয়েছিল সায়ম। তবে রাতে সে আর বাড়ি ফেরেনি। পরিবারের লোকের ধারনা হয় ওই আত্মীয়র বাড়িতে রাত যাপন করবে সায়েম। কিন্তু ঘটনা চক্রে ওই যুবক আত্মীয়ের বাড়িতে পৌঁছায়নি। সোমবার সকালেই ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো রক্তাক্ত দেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। এই গোটা ঘটনায় রহস্য দানা বেঁধেছে। এইদিন সে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পরিবারের সদস্যরা। পরে স্থানীয়রা এ ঘটনার খবর দেয় থানায়। খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হয় কালিয়াচক থানার পুলিশ। তাঁরা দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিক্যাল কলেজে পাঠায়।

পরিবারের সদস্যদের দাবী সায়েমের সাথে কারো কোন গণ্ডগোল ছিল না। তবে কি কারণে তার এ অবস্থা হল তা নিয়ে ভাবতেই পারছেনা পরিবার। ঘটনার সাথে এলাকার কেউ জড়িত বলে অনুমান করছে পরিবার। বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।