মমতার জেদের কাছে হার মেনে রাজ্যের নতুন নাম ‘বাংলা’ প্রস্তাব গ্রহণ করতে চলেছে কেন্দ্র সরকার

912

ওয়েব ডেস্ক, ৪ মার্চঃ ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল’ নাম বদলে ‘বাংলা’ রাখার প্রস্তাব দিয়ে রাজ্য। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। প্রতিবেশী বাংলাদেশের নামের প্রথম অংশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের নতুন নাম বাংলা মিলে যাওয়ায় তা বাতিল করা হয়েছে। এটা নিয়ে রাজ্য বনাম কেন্দ্রের মধ্যে বিরোধ শুরু হয়। কিন্তু সেই প্রস্তাব এবার গ্রহণ করতে চলেছে কেন্দ্র। এই বিষয়ে ইতিবাচক মন্তব্য করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই।

বুধবার রাজ্যসভার অধিবেশনে তিনি বলেন, “ওয়েস্ট বেঙ্গল থেকে বাংলা নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব আমাদের কাছে গৃহীত হয়েছে। কিন্তু রাজ্যের নাম বদলের জন্য একটি নির্দিষ্ট সাংবিধানিক নিয়ম রয়েছে।”

রাজনৈতিক মহলের ধারন, রাজ্য তথা বাংলার সাথে কেন্দ্রের যে সংঘাত দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। তা সমাপ্তি ঘটাতেই কি মোদী সরকারের এই প্রস্তাব। নাকি মমতার কাছে হার মেনে নিয়ে ওয়েস্ট বেঙ্গল নামের পরিবর্তে ‘বাংলা’ নামকরণ প্রস্তাব দিতে চলেছে কেন্দ্র। নাকি ক্যা, এনআরসি, এনপিআর থেকে মমতাকে নজর ঘুরিয়ে গোপন আঁতাত করার পথে হাঁটছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার।

উল্লেখ্য,বাম আমলেই শুরু হয়েছিল রাজ্যের নাম বদলের উদ্যোগ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ক্ষমতায় আসার পর চেয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলাতে। কিন্তু বিষয়টি ধামাচাপা ছিল। দ্বিতীয় ইনিংসের গোড়াতে নাম পরিবর্তনের প্রক্রিয়াটি এগিয়ে নিয়ে যান মুখ্যমন্ত্রী। ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে রাজ্য মন্ত্রিসভায় ‘পশ্চিমবঙ্গ’ নাম বদলে ফেলার প্রস্তাব পাস করিয়ে নেন তিনি। ২০১৮ সালের জুলাইয়ে বিধানসভা থেকে রাজ্যের নাম পাল্টে বাংলা করার প্রস্তাব পাস হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছিল কেন্দ্র।

রাজ্য সরকারের বক্তব্য ছিল,প্রধানমন্ত্রীর ডাকা বৈঠকে বরাবরই পশ্চিমবঙ্গের ডাক পড়ে একদম শেষে। কারণ ইংরেজি বর্ণমালা অনুযায়ী, রাজ্যগুলোর নাম ধরে ধরে বলার সুযোগ দেওয়া হয়। এ রাজ্যের ইংরেজি নাম ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল’। শুরু ডব্লিউ অক্ষর দিয়ে। ফলে প্রথম দিকের বক্তারা বেশি সময় নিয়ে ফেলায় শেষের বক্তাদের নির্ধারিত সময় কমে যায়। তাছাড়া শেষ দিকে অনেকটা শিথিলও হয়ে আসে সভার মনোভাব।