অগ্রিম বেতন না পেয়ে মালিকের স্ত্রীকে কুপিয়ে খুনের চেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার চালক

201

বর্ধমান,২৯ অক্টোবর: অগ্রিম বেতন না হয়ে মালিকের স্ত্রীকে পিটিয়ে খুনের চেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার চালক। ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমানের খোশবাগান এলাকায়। জানা গেছে, মালিক তাঁর নিজের স্ত্রীকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন স্বয়ং নিজে। সংকটজনক অবস্থায় তাকে ভর্তি করা হয় বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তদন্তে নেমে পুলিশ গাড়ি চালক তপন দাসকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশ সূত্রের খবর আজ আদালতে পেশ করে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আড়জী জানানো হবে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, তপন দাস ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সুব্রত নাগ নামে এক চিকিৎসকের গাড়ি চালাচ্ছে। পেশায় অ্যানাস্থেসিস্ট ডাক্তার সুব্রত নাগ। দম্পতির একমাত্র ছেলে কর্মসূত্রে আমেরিকায় থাকেন। সুব্রতবাবু এবং তাঁর স্ত্রী মৌসুমী দেবীকে দেখভালের জন্য দীর্ঘদিন ধরে তাঁদের বাড়িতে পরিচারিকা হিসেবে থাকেন জবা প্রামাণিক। এছাড়া মালি-সহ আরও কয়েকজন পরিচারক-পরিচারিকা রয়েছেন সেই বাড়িতে।

সোমবার বিকেলের দিকে গাড়ি চালক তপন গিয়ে বাড়িতে কলিং বেল বাজায়। সেই সময় বাড়ির সকলেই তখন দোতলায় ছিলেন। মৌসুমী দেবীই দরজা খুলে দেন। এরপর দুজনের মধ্যে বচসা শুরু হয়।

বাড়ির প্রধান পরিচারিকা জবা প্রামাণিকের কথায়, “তপন বেতনের টাকা অগ্রিম চায়। এমনকী তিন মাসের বেতন একসঙ্গে অগ্রিম দিতে হবে বলেও দাবি করে। তখন ম্যাডাম বলেন, মাস শেষ না হলে বেতন কীভবে দেবেন। আর তিনমাসের অগ্রিমও দেওয়া টাএ পক্ষে সম্ভব নয়। তখন তপন বলে, সে কাজ ছেড়ে দেবে। তাঁর পরিপ্রেক্ষিতে তপন কেই কাজ থেকে ছাড়িয়ে দিতে চাই ।” আর তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে তপন।

ঘটনার পর বর্ধমান থানার আইসি পিন্টু সাহা-সহ পদস্থ পুলিশকর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে  তদন্তে নামেন। ডাক্তার সুব্রত নাগ সুস্থ হয়ে ওঠার অপেক্ষায় রয়েছেন তাঁরা। তাহলে তাঁর বয়ান নেওয়া সম্ভব হবে এবং বেশ কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য মিলবে বলে আশাবাদী তদন্তকারীদের একাংশ।