পাওয়নাদারের মারধরের হাত থেকে নিজের ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যু বাবার

81

ওয়েব ডেস্ক, ৩০ ডিসেম্বরঃ পাওনাদারের হাত থেকে নিজের ছেলেকে বাজাতে গিয়ে নিজের জীবন ত্যাগ করতে হল বাবাকে। এমনি মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে, বনগাঁ থানার রামকৃষ্ণ পল্লী এলাকায়। জানা গেছে, পাওনাদারের মারধরের হাত থেকে ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে বাবার। গুরুত্বর আহত স্ত্রী ও ছেলে। বর্তমানে আহত তিনজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এই ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য এলাকায়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রানুযায়ী, মৃত ব্যক্তির নাম জিতেন শিকদার। মৃত ব্যক্তির  ছেলে রাজু শিকদার মাদাকসক্ত ছিলেন। নিয়মিত মদের নেসা করতেন। এবং এলাকার বেস কিছু যুবকের কাছে মদকদ্রব্য বিক্রিও করতেন।

জানা গেছে, গত শনিবার সেই মাদকের টাকা পয়সা নিয়ে কয়েকজন যুবক রাজুর বাড়িতে আসে অশান্তি শুরু করে। কিছুক্ষণ অশান্তি হওয়ার পর সাময়িকভাবে তা মিটে যায়। এরপর রবিবার রাতে ফের রাজুর বাড়িতে হানা দেয় অভিযুক্তরা। বেধড়ক মারধর করা হয় রাজুকে। বাঁচাতে গেলে মারধর করা হয় রাজুর বাবা বছর পঁচাশির জিতেনকে। বৃদ্ধকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হন তাঁর স্ত্রী ও ছেলে রাজু। চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে তিন অভিযুক্তকে ধরে ফেলে। তারপর স্থানীয়রা গুরুত্বর আহত ৩ জনকে উদ্ধার করে নগাঁ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে গেল কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জিতেনবাবুকে মৃত বলে ঘোষণা করে। বাকি দু’জন ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আক্রান্ত রাজুর দিদি সাধনা বিশ্বাস বলেন,“বাঁশ নিয়ে রাজুর উপরে চড়াও হয়ে মারধর করতে থাকে কয়েকজন। বাবা, মা ভাইকে বাঁচাতে গেলে লাঠি-বাঁশ দিয়ে মা ও বাবার মাথায় আঘাত করে তারা৷”

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, ইতিমধ্যেই দুই অভিযু্ক্তকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে গ্রামবাসীরা। বাকিদের খোঁজে শুরু হয়েছে তদন্ত। ঠিক কী কারণে এই আক্রমণ, তা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।