আইসোলেশনের নিয়মভঙ্গকারীদের চিঠি পাঠাতে চলেছে ফিরহাদের প্রশাসন

46

ওয়েব ডেস্ক, ১ আগস্টঃ ৬০ ন্যনোমিটারের মারণ ভাইরাস করোনা। যা সারা দেশের সাথে সাথে এরাজ্যেও নিজের আধিপত্য বিস্তার করে চলছে এই অদৃশ্য অণুজীবাণু। তবে এখন যারা আক্রান্ত হচ্ছে তাঁদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষ উপসর্গহীন রোগীর সংখ্যাটা বেশি। তাই এবারে হাসপাতালে ভর্তি করানোর থেকে নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে বা কোয়ারেন্টিন সেন্টারে কিংবা সেফ হোমে থাকতে বলে হচ্ছে।

তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সেফ হোম ও কোয়ারেন্টিন মানছে না অনেকেই। কিন্তু খাস কলকাতা শহরে কলকাতা পুরনিগমের কাছে প্রমাণ সহ তথ্য এসেছে যে হোম আইসোলেশনে যারা রয়েছেন তাঁরা ঠিক মতন নিয়ম মেনে চলছেন না। এবার এই নিয়মভঙ্গকারীদের চিঠি পাঠাতে চলেছে কলকাতা পুরনিগম কর্তৃপক্ষ।এবার সেইসব মানুষদেরই সতর্ক করে দিতে চিঠি পাঠাতে চলেছে কলকাতা পুরনিগমের স্বাস্থ্য বিভাগ। তারপরেও যদি আক্রান্তের পরিবার নিয়ম না মানেন তাহলে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও জানিয়ে দেওয়া হবে সেই চিঠিতে।

সেই সঙ্গে নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থাও। এই প্রসঙ্গে কলকাতা পুরনিগমের স্বাস্থ্যবিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথা পুর-প্রশাসকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য অতীন ঘোষ জানান, ‘বিষয়টি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। নিয়ম যাঁরা মানছেন না, প্রয়োজনে স্বল্প উপসর্গযুক্ত কিংবা উপসর্গহীনদের সেফ হোমে পাঠানোর ব্যবস্থা করবে পুরসভা। তাঁদের বোঝানোর চেষ্টা করা হবে। গুরুতর অসুস্থদের গুরুতর অসুস্থদের হাসপাতালে ভর্তি করা হবে।’

রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের নেতৃত্বে থাকা কলকাতা পুরনিগমের প্রশাসকমন্ডলীর কাছে অভিযোগ এসেছে যে শহরের বুকে হোম আইসোলেশনে থাকা ৫০ শতাংশ মানুষ স্বাস্থ্য দফতরের গাইডলাইন মেনে চলছেন না। প্রতি পদে পদে তাঁরা নিয়মভঙ্গ করছেন। নিয়ম অনুযায়ী যারা হোম আইসোলেশনে আছেন তাঁদের ৩টি সার্টিফিকেট প্রশাসনের কাছে জমা দিতে হয়। এক, যে ডাক্তারের অধীনে তিনি হোম আইসোলেশনে রয়েছেন, সেই চিকিৎসকের স্বাক্ষরিত শংসাপত্র। দুই, বাড়িতে যিনি দেখভাল করছেন বা যদি কোনও আয়া থাকে, সেই সংক্রান্ত নথি এবং তিন, আক্রান্তের নিজস্ব স্বাক্ষরসহ জবানবন্দির সার্টিফিকেট।