ক্যা ও এনআরসির বিরোধিতা নিয়েও তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে

865

বিশ্বজিৎ মন্ডল, মালদাঃ ক্যা ও এনআরসির বিরোধিতা করার নামে ক্ষমতা প্রদর্শনের প্রতিযোগিতায় নামল তৃণমূলেরই দুই গোষ্ঠী। পাশাপাশি দুটি মঞ্চ করে দুই গোষ্ঠী নামল জনসভা করতে। দুটি মঞ্চের মধ্যে দূরত্ব ৫০ মিটারেরও কম। এই ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা মালদার রতুয়াতে। দুই গোষ্ঠীর কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতিও হয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে নাজেহাল পুলিশ। চরম অস্বস্তিতে তৃণমূল।

মালদা জেলায় তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল নতুন কিছু নয়। বহুবার তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে মধ্যস্থতা করেও বিশেষ লাভ হয় নি। আজ সব কিছু ছাড়িয়ে প্রকাশ্যে নেমে পড়ল দুই গোষ্ঠী। মালদার রতুয়ায় আজ ক্যা ও এনআরসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল এবং জনসভা করার কর্মসূচি ছিল। রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ মেনে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে নামেন তৃণমূল বিধায়ক সমর মুখার্জি।

মোহাম্মদ ইয়াসিনের দাবি, সুমর মুখোপাধ্যায় দলের ক্ষতি করছে। জেলা নেতৃত্বের নির্দেশে তিনি এই সভা করছেন। সেখান থেকে কিছুটা দূরত্বে পাল্টা সভা ডেকে দলকে ছোট করছেন বিধায়ক। গত লোকসভা নির্বাচনে নিজের এলাকাতেই ভোট করতে পারেননি বিধায়ক। বিধায়কের বুথে তৃণমূলের থেকে বিজেপি অনেক বেশি ভোট পেয়েছিল। এই সভা ডেকে দলকে মানুষের কাছে আরো ছোট করছেন তিনি।

বিধায়ক সুমর মুখোপাধ্যায় বলেন, ওখানে কারা সভা করছে তা বলতে পারছিনা। আমি মালদা জেলার সহ-সভাপতি। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে এই সভা করছি।

একই এলাকায় এই দুটি সভাকে নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপির জেলা নেতা সুদীপ্ত চ্যাটার্জী। তার দাবি মানুষ তৃণমূলের পাশে নেই এটা গোষ্ঠী কোন্দল ও ক্ষমতা প্রদর্শনের লড়াই।

যদিও এই ঘটনায় চরম অস্বস্তিতে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। তৃণমূলের মালদা জেলার কার্যকরী সভাপতি দুলাল সরকার বলেন, রতুয়া এলাকায় দু’টি বিধানসভা কেন্দ্র রয়েছে সেই কারণেই হয়তো দুটি সভা হচ্ছে।